ঋণের জামিনদার শিক্ষক কারাগারে - বিবিধ - Dainikshiksha


ঋণের জামিনদার শিক্ষক কারাগারে

পিরোজপুর প্রতিনিধি |

মঠবাড়িয়ায় ব্র্যাক ব্যাংক থেকে জাকির হোসেন নামের এক প্রতারক ব্যবসায়ী ১৫ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের দায়ের করা মামলায় জামিনদার উপজেলার পাঁচশতকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ইউনুস হাওলাদার একমাস ধরে জেল-হাজতে রয়েছেন। পুলিশ ওই ব্যবসায়ী প্রতারককে গ্রেফতার করতে না পারায় নির্দোষ স্কুলশিক্ষক কারাভোগ করছেন।

জানা গেছে, উপজেলার পশ্চিম সেনের টিকিকাটা গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদ আকনের ছেলে সুতা ব্যবসায়ী জাকির হোসেন ব্র্যাক ব্যাংক মঠবাড়িয়া শাখা থেকে ২০১৩ সালে ১৫ লাখ টাকা ঋণ গ্রহণ করেন। ঋণ বিতরণে ব্যাংকের কাগজপত্রে একজন জামিনদারের প্রয়োজন হয়। ওই ব্যবসায়ী স্কুলশিক্ষকের পরিচিত বিধায় তিনি জামিনদার হন। কিন্তু ঋণ গ্রহণের কিছুদিন পরে প্রতারক ব্যবসায়ী জাকির হোসেন ব্যাংকের টাকা যথারীতি পরিশোধ না করে পালিয়ে যান। পরে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ পিরোজপুর জেলা যুগ্ম দায়রা জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় জামিনদার স্কুলশিক্ষককেও আসামি করা হয়। আদালতে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হলে জাকির হোসেন পলাতক থাকায় জামিনদাতা নিরীহ শিক্ষক বৃদ্ধ ইউনুস হাওলাদারকে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেন। গত একমাস ধরে তিনি পিরোজপুর কারাগারে বন্দী রয়েছেন।

স্কুলশিক্ষকের ছেলে সুমন হাওলাদার জানান, তার বৃদ্ধ পিতা নানাবিধ জটিল রোগে ভুগছেন। তার সরলতার সুযোগ নিয়ে প্রতারক ওই ব্যবসায়ী তাকে এখন বিপাকে ফেলেছেন।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ গোলাম ছরোয়ার জানান, আদালতের আদেশে ওই স্কুলশিক্ষককে গ্রেফতার করতে হয়েছে। তবে প্রতারক জাকির হোসেনকে গ্রেফতারের জন্য সকল থানায় ম্যাসেজ পাঠানো হয়েছে।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ৯০৯ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ৯০৯ শিক্ষক সরকারি হল আরও ৪৩ প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha সরকারি হল আরও ৪৩ প্রতিষ্ঠান পদোন্নতি পাচ্ছেন সরকারি হাইস্কুলের সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষক - dainik shiksha পদোন্নতি পাচ্ছেন সরকারি হাইস্কুলের সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষক বিশেষ মঞ্জুরীর টাকার আবেদন করা যাবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha বিশেষ মঞ্জুরীর টাকার আবেদন করা যাবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত টেস্টে ফেল করলে পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না - dainik shiksha টেস্টে ফেল করলে পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না শূন্যপদের চাহিদা পাঠানোর সময় ফের বাড়ল - dainik shiksha শূন্যপদের চাহিদা পাঠানোর সময় ফের বাড়ল দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website