এমপিওভুক্তির নামে তুঘলকি কারবার - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা


এমপিওভুক্তির নামে তুঘলকি কারবার

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

নীতিমালার অজুহাত দিয়ে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তিতে তুঘলকি কারবার ঘটিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অস্তিত্বহীন টেকনিক্যাল কলেজ, সরকারি কলেজ এবং বিএনপি-জামায়াত-শিবির ও যুদ্ধাপরাধী মামলার আসামি প্রতিষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হলেও সরকারদলীয় মন্ত্রী-এমপিদের প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান হয়নি। এমন কী এমপিওভুক্তির কার্যক্রমে এমপিদের দেয়া ‘ডিও’ লেটারও আমলে নেয়া হয়নি। এতে সরকারদলীয় মন্ত্রী-এমপিরা ক্ষুব্ধ। শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) ভোরের কাগজ পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়। প্রতিবেদনটি লিখেছেন অভিজিৎ ভট্টাচার্য।

আরও পড়ুন: শিক্ষার্থী নেই, ভবন নেই তবু এমপিওভুক্তি!

এমপিওভুক্তির তালিকায় নাম না থাকায় প্রধান শিক্ষক অবরুদ্ধ

এমপিওভুক্ত স্কুল ফের এমপিওভুক্তির তালিকায়!

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গত বুধবার সন্ধ্যায় প্রকাশিত নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির তালিকা বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য জানা গেছে। সাড়ে নয় বছর পর এদিন ২,৭৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সরকার এমপিওভুক্ত করে। এতে বাদ পড়ে নোয়াখালীর কবিরহাটে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বাবার নামে ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত মোশাররফ হোসেন মাধ্যমিক হাইস্কুল ও টাঙ্গাইলের ধনবাড়িতে কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাকের মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত রেজিয়া কলেজ। এমনকি এমপিওভুক্তির দাবিতে যেসব শিক্ষক আন্দোলন করেছিলেন তাদের সংগঠনের সভাপতি ও সম্পাদকের প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্ত হয়নি।

তবে ভোলার সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবের মা, বাবা, স্ত্রী ও নিজের নামে প্রতিষ্ঠিত চারটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয়েছে। জামালপুর সদর উপজেলায় প্রায় ১৮টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয়েছে। এদিকে, ১০ বছর আগে পঞ্চগড়ের বোদায় ঝলইশালশিড়ি ইউনিয়নের নতুন হাট টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট নামে একটি প্রতিষ্ঠান স্থাপতি হলেও অনেক আগেই বিলীন হয়েছে সেটির অস্তিত্ব। জায়গাটি বর্তমানে পরিত্যক্ত। তবু এমপিওভুক্ত হয়েছে অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানটি।

আরও পড়ুন: সরকারিকৃত কলেজও এমপিওভুক্তির তালিকায়!

ঘর নেই, শিক্ষার্থী নেই, পরীক্ষার ফল নেই, তবুও এমপিওভুক্ত!

টাকা থাকলেও পাওয়া যায়নি এমপিওভুক্তির যোগ্য প্রতিষ্ঠান

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, এমপিওভুক্তির বর্তমান নীতিমালাটি স্থগিত করা হবে। এরপর নীতিমালায় সংশোধনী আনার জন্য একটি কমিটি গঠন করে দেয়া হবে। ওই কমিটি যে নীতিমালা প্রণয়ন করবে সে আলোকে এমপিওভুক্তির প্রক্রিয়া চলমান থাকবে। তবে মন্ত্রণালয়ের অন্য একটি সূত্র বলেছে, এমপিওভুক্তির কার্যক্রমের জন্য শিক্ষামন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলেও শিক্ষামন্ত্রী শুরুর দিকে বিষয়টি আমলে নেননি। পরে যখন তিনি পুরো বিষয়টি বুঝতে পারেন তখন আর তার পক্ষে আর কিছু করার ছিল না। এরপরই তিনি সিদ্ধান্ত নেন পুরো নীতিমালা পরিবর্তন করার এবং এই নীতিমালা পরিবর্তন করবেন বলেও সিদ্ধান্ত দেন। বর্তমান নীতিমালায় এমপিওভুক্ত হওয়ার জন্য পরীক্ষার ফলাফলে পাসের হারে শহর ও মফস্বল এলাকায় ৭০ শতাংশের কথা বলা হয়েছে। মফস্বল এলাকার জন্য এই হার পরিবর্তন করে ৪০ শতাংশ হতে পারে বলে জানা গেছে।

এমপিওভুক্তির তালিকায় সরকারি কলেজ : হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শাহজালাল কলেজকে সরকারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগ গত বছরের ১২ আগস্ট আদেশ জারি করে। ওইদিনের আদেশে বলা হয়েছিল, ‘সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারী আত্মীকরণ বিধিমালা-২০১৮’ এর আলোকে জেলা ও উপজেলাধীন ২৭১টি কলেজ ৮ আগস্ট থেকে সরকারি করা হলো।’ সেই ২৭১ কলেজের মধ্যে একটি হলো শাহজালাল কলেজ। গত বুধবার প্রকাশিত এমপিওভুক্তির তালিকায় দেখা যায়, তালিকার ৫১ নম্বরে (ইআইএন ১২৯৪৯২) থাকা শাহজালাল কলেজটির ডিগ্রি স্তরের এমপিওভুক্তি হয়েছে। এ ব্যাপারে শাহজালাল কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক বলেছেন, সরকারি হওয়ার পরও আমাদের কলেজের ডিগ্রি শাখা এমপিওভুক্তির তালিকায় যুক্ত হলো কীভাবে। তারা হয়তো ঠিকভাবে তথ্য যাচাইবাছাই করেননি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেছেন, এমপিও তালিকায় অন্তর্ভুক্ত সরকারি কলেজটি বাদ দেয়া হবে। বিএনপি-জামায়াত কিংবা যুদ্ধাপরাধীদের প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান হলেও যোগ্যতার কারণে অনেকে এমপিও পেয়েছে। মন্ত্রীদের বাবা-মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান এমপিও না পাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, কার কী বাদ গেল এই নীতিমালায় তা দেখার সুযোগ নেই।

আরও পড়ুন: নীতিমালা শিথিল করে ২৩৫ প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তি

বিএনপি-জামাত ও স্বাধীনতাবিরোধীদের নামে ডজনেরও বেশি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত

এমপিওভুক্তি বাতিল দাবিতে বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ

বিএনপি-জামায়াত ও স্বাধীনতাবিরোধীদের নামে ডজনখানেক প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত : অনুসন্ধানে জানা গেছে, কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার সোনাকান্দা ড. মোশাররফ হোসেন ইসলামিয়া রহমানিয়া দাখিল মাদরাসা, দাউদকান্দি উপজেলার ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন হাইস্কুল, ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলার শহীদ জিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা, বগুড়া গাবতলীর শহীদ জিয়াউর রগমান গার্লস হাইস্কুল, সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার এম সাইফুর রহমান টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজ, সাতক্ষীরার তালার শহীদ জিয়াউর রহমান মহাবিদ্যালয়, ঝালকাঠির নলছিটির প্যালেস্টাইন টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও বগুড়ার গাবতলীর শহীদ জিয়াউর রহমান মাধ্যমিক বিদ্যালয় এমপিওভুক্ত হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকার কামরাঙ্গীরচরের হিলফুল ফুজুল টেকনিক্যাল ও বিএম কলেজ ও ঝিনাইদহের মশিউর রহমান মাধ্যমিক বিদ্যালয় এমপিওভুক্ত হয়েছে। পঞ্চগড়ের সদর উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নের বাসিন্দ ’৭১-এর শান্তি কমিটির সদস্য খামির উদ্দিন প্রধানের নামে প্রতিষ্ঠিত মাদরাসাটির আলিম স্তর এবার এমপিওভুক্ত হয়েছে। এতে এলাকায় ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে। নেত্রকোনার কমলাকান্দার হিলফুল ফুজুল জামায়াত ইসলামি এনজিও হিসেবে পরিচিত। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১২৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন। এ প্রতিষ্ঠানটিও এমপিওভুক্ত হয়েছে। ঝালকাঠির নলছিটির প্যালেস্টাইন টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এলাকার সুলতান আহমেদ। তিনি জামায়াতপন্থি প্রশাসন ক্যাডার কর্মকর্তা ছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

যুদ্ধাপরাধ মামলার আসামির নামে এমপিওভুক্ত হলো হাইস্কুল : সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় যুদ্ধাপরাধ মামলার আসামি আলহাজ ঝুনু মিয়ার নামে নামকরণকৃত আলহাজ ঝুনু মিয়া হাইস্কুলের নিম্ন মাধ্যমিক স্তর এমপিওভুক্ত হয়েছে। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষজন। ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দের ১২ সেপ্টেম্বর ঝুনু মিয়ার নামে জামালগঞ্জ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সদরকান্দি গ্রামের আবদুল জলিল একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ঝুনু মিয়াসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এই মামলাটি যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে তদন্তের জন্য পাঠিয়েছিলেন আদালত। মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ঝুনু মিয়ার বাবা লাল মিয়া ছিলেন হাওরাঞ্চলের শীর্ষ রাজাকার। নিজের নামে প্রতিষ্ঠানটি এমপিওভুক্ত হওয়ায় স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন রতনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ঝুনু মিয়া। একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সদস্য আকবর হোসেন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার রাজাকারের নামে প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি দেয়াটা আমাদের জন্য কষ্টের।

জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক-২) মো. জাবেদ আহমেদ বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি যাতে কোনো যুদ্ধাপরাধী কিংবা এ সংক্রান্ত মামলার আসামির নামে প্রতিষ্ঠিত কোনো প্রতিষ্ঠান যাতে এমপিও না পায়। কিন্তু সব যুদ্ধাপরাধীকে আমরা চিনি না। একারণে হয়ত একটা-দুটো প্রতিষ্ঠান শর্তের মধ্যে পড়ে এমপিওভুক্ত হয়ে গেছে।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
জেএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর আহ্বান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের - dainik shiksha জেএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর আহ্বান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্কুল খুললে সীমিত পরিসরে পিইসি, অটোপাস নয় : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha স্কুল খুললে সীমিত পরিসরে পিইসি, অটোপাস নয় : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাতীয়করণ: ফের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত সেলিম ভুইঁয়া, কর্মসূচির হুমকি - dainik shiksha জাতীয়করণ: ফের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত সেলিম ভুইঁয়া, কর্মসূচির হুমকি একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন করবেন যেভাবে - dainik shiksha একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন করবেন যেভাবে please click here to view dainikshiksha website