করোনায় শিক্ষার্থীদের বেতন-ফি ও মেসভাড়া মওকুফে রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারির দাবি ছাত্র জোটের - ছাত্র-শিক্ষক রাজনীতি - দৈনিকশিক্ষা


করোনায় শিক্ষার্থীদের বেতন-ফি ও মেসভাড়া মওকুফে রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারির দাবি ছাত্র জোটের

নিজস্ব প্রতিবেদক |

সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বেতন-ফি ও অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া মওকুফে রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি জমা দিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্র জোট। মঙ্গলবার (১৯ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক সমাবেশ শেষে এ স্মারকলিপি জমা দেন নেতাকর্মীরা।

সমাবেশে বক্তব্য দেন প্রগতিশীল ছাত্র জোটের সমন্বয়ক ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি মাসুদ রানা, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি মেহেদী হাসান নোবেল, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ইকবাল কবির ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন প্রিন্স।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, করোনা সংক্রমণে সারাদেশে একটি সংকটময় পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এই সংকট কাটিয়ে উঠতে কৃষি-স্বাস্থ্য- শিক্ষা সব খাতেই বিশেষ আর্থিক বরাদ্দ প্রয়োজন। আগামী জুন মাসে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের জাতীয় বাজেট প্রণয়ন করা হবে। বরাবরই অর্থ বরাদ্দের ক্ষেত্রে শিক্ষাখাতকে অবহেলা করা হয়। একটি দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে ও  দেশকে এগিয়ে নিতে শিক্ষাখাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া  আবশ্যক।

বক্তারা বলেন, ইউনিসেফ’র প্রস্তাবনায় একটি দেশের জাতীয় আয়ের শতকরা ৮ ভাগ অর্থ বরাদ্দ দেয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু প্রতি বছরেই শিক্ষাখাতের পর্যাপ্ত বরাদ্দকে উপেক্ষা করা হয়েছে। গত দশ বছরে শিক্ষার ব্যয় এত বেড়েছে যে প্রাথমিক স্তর শেষ করে মাধ্যমিক স্তরেই লাখ লাখ শিক্ষার্থী ঝরে পড়ছে। সারাদেশে উচ্চ শিক্ষালাভের সুযোগ সংকুচিত করা হয়েছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গবেষণায় নামেমাত্র বরাদ্দের কারণে শুধু সার্টিফিকেট সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সংকট ক্রমাগত ঘনীভূত হচ্ছে। গত কয়েক বছরে দফায় দফায় শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে ফেটে পড়লেও  সংকট নিরসনে পর্যাপ্ত বরাদ্দের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো শর্ত না  মেনে চললেও ইউজিসির অনুমোদন নিয়ে বছরের পর বছর ভর্তি ফি, টিউশন ফি নিয়ে উচ্চশিক্ষার নামে সার্টিফিকেট ব্যবসার অবাধ  ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। এ সমস্ত সংকটের মধ্যে দিয়ে চলছিল আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থা। এর সাথে সংকট সৃষ্টি করছে করোনা।

নেতারা বলেন, এ বছর করোনা সংক্রমণের কারণে লাখ লাখ শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন হুমকির মুখে পড়েছে। অর্থনৈতিক সংকটের এ সময়ে অসংখ্য পরিবারে যখন বেঁচে থাকাই কঠিন তখন শিক্ষাব্যয় নির্বাহ একটি বাড়তি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। দুস্থ এসকল শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ আর্থিক বরাদ্দ প্রয়োজন। আবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আবাসিক ব্যবস্থার অভাবে সারাদেশব্যাপী লাখ লাখ শিক্ষার্থীকে মেস ভাড়া করে থাকতে হয়। শহরের  মেসগুলোতে অবস্থানকারী শিক্ষার্থীরা বেশিরভাগই টিউশনি করে চলতো অনেকে পরিবারেও কিছুটা সহযোগিতা করতো। লকডাউনে দুই মাস টিউশনি নেই। শিক্ষার্থীরা মেসে না থাকলেও মেস মালিকরা দু’ মাসের বকেয়া ভাড়া আদায়ের চেষ্টা করছে। অনেক মেস মালিক আবার এই মেসভাড়ার ওপর নির্ভরশীল। এই সংকট নিরসনে সংকটগ্রস্থ  মেসের শিক্ষার্থীদেরকে মেসের ভাড়া পরিশোধের জন্য বিশেষ আর্থিক বরাদ্দ প্রয়োজন।

একই সাথে এ বছরের সকল প্রকার বেতন-ফি ও সেমিস্টার ফি বাতিল করা প্রয়োজন এবং করোনাকালীন পরিস্থিতিতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনের মাধ্যমে সব ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রাখতে ও স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করলে অন্তত ১ সেমিস্টার টিউশন ফি মওকুফে সরকারের যথাযথ ভূমিকা প্রয়োজন রয়েছে বলে জানান তারা।

সমাবেশের শেষ পর্যায়ে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ বছরের বেতন ফি মওকুফ, করোনাকালীন পরিস্থিতিতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন কার্যক্রম বন্ধ ও পরবর্তী সময়ে ক্লাস শুরু হলে অন্তত ১ সেমিস্টার  টিউশন ফি না নেয়া এবং অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া মওকুফে রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারি করে রাষ্ট্রীয় বরাদ্দ নিশ্চিত করতে হবে বলে দাবি জানা ছাত্র জোটের নেতারা।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
করোনায় আরো ৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৪২৩ - dainik shiksha করোনায় আরো ৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৪২৩ চাষ না করে কৃষি জমি ফেলে রাখলে নিয়ে নেবে সরকার - dainik shiksha চাষ না করে কৃষি জমি ফেলে রাখলে নিয়ে নেবে সরকার পছন্দের শিক্ষকের পাঠদান পাওয়া যাবে মোবাইল ফোনে - dainik shiksha পছন্দের শিক্ষকের পাঠদান পাওয়া যাবে মোবাইল ফোনে লকডাউন উঠানো, না উঠানো নিয়ে যা বললেন এন আই খান (ভিডিও) - dainik shiksha লকডাউন উঠানো, না উঠানো নিয়ে যা বললেন এন আই খান (ভিডিও) শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের তথ্য চেয়েছে মন্ত্রণালয় - dainik shiksha শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের তথ্য চেয়েছে মন্ত্রণালয় নটরডেম কলেজে ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত - dainik shiksha নটরডেম কলেজে ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত জেডিসির রেজিস্ট্রেশনের সময় ফের বাড়ল - dainik shiksha জেডিসির রেজিস্ট্রেশনের সময় ফের বাড়ল কলেজে ভর্তি : দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha কলেজে ভর্তি : দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে ঘরে বসে পাঠদান: শিক্ষকদের জন্য ফ্রি অনলাইন কোর্স - dainik shiksha ঘরে বসে পাঠদান: শিক্ষকদের জন্য ফ্রি অনলাইন কোর্স ৮ জুনের মধ্যে শিক্ষক-কর্মচারীদের তালিকা চেয়েছে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড - dainik shiksha ৮ জুনের মধ্যে শিক্ষক-কর্মচারীদের তালিকা চেয়েছে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড দাখিলের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন যেভাবে - dainik shiksha দাখিলের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন যেভাবে এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন ৭ জুনের মধ্যে - dainik shiksha এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন ৭ জুনের মধ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া উপবৃত্তির টাকা মেরে দেয়ার অভিযোগে মাদরাসার অফিস সহকারীর গলায় জুতার মালা - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা মেরে দেয়ার অভিযোগে মাদরাসার অফিস সহকারীর গলায় জুতার মালা please click here to view dainikshiksha website