কিশোরদের বইমুখী করতে বিশেষ টার্গেট নিন: মুহম্মদ জাফর ইকবাল - বই - Dainikshiksha


কিশোরদের বইমুখী করতে বিশেষ টার্গেট নিন: মুহম্মদ জাফর ইকবাল

নিজস্ব প্রতিবেদক |

বয়োঃসন্ধিকালে কিশোর বয়সীদের বইমুখী করে তুলতে ‘বিশেষ টার্গেট’ নিতে অভিভাবকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন লেখক অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল।


শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) অমর একুশের গ্রন্থমেলার তৃতীয় শিশু প্রহরে এসে তিনি এই অনুরোধ জানিয়েছেন।

জাফর ইকবাল বলেন, “একেবারে শিশু না, কিশোর... এই যারা ক্লাস সেভেন এইটে পড়ে..... এই বয়সটায় তার সবকিছু মনস্তাত্বিক পরিবর্তন ঘটে এবং শিক্ষণীয় সময়টা পার করে। বই পড়াতে আমাদের ওই সময়টাকে আরও একটু টার্গেট করা যেতে পারে।”

নানা ‘গেজেট’ হাতে চলে আসায় এখনকার কিশোরদের যথাযথ বিকাশ হচ্ছে না বলে মনস্তত্ববিদরা বলছেন।

জাফর ইকবাল বলেন, “বাচ্চাদের ইউটিউব-ফেইসবুক থেকে সরিয়ে নিয়ে আসুন। মোবাইল স্ক্রিন থেকে ওদের সরিয়ে আনুন। স্ক্রিন হচ্ছে একমুখী, সে আমাকে দেয়, আমি কিছু দিতে পারি না। কিন্তু বই তো একমুখী না।

“বাবা-মাকে বলবো, আপনারা একটু বাচ্চাদের হাতে টাকা দেন, ওরা বই কিনুক। উৎসাহ দেন বই পড়ার জন্য।”

বই পড়ার মাধ্যমে চিন্তার জগতের প্রসার ঘটার কথা কিশোরদের সামনে তুলে ধরেন এই লেখক।

“আমি যখন বই পড়ি তখন কল্পনা করি, চিন্তা জাগে, আর এটা একটা প্রক্রিয়া। কিন্তু ফেইসবুক দেখলে বা ইউটিউব দেখলে তো কোনো প্রক্রিয়া হয় না, শুধু ভালো লাগা জন্মে।”

শিশু-কিশোরদের বইমুখী করতে বিদ্যালয়গুলোও ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন জনপ্রিয় এই লেখক।

“প্রত্যেকটা স্কুল যদি দায়িত্ব নেয় যে, আমাদের স্কুলের সব শিশুদের আমরা মেলায় নিয়ে যাব, সে ব্যাপারটাও বেশ ভালো হয়। আগে থেকে মেলা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে সব বাচ্চাদের নিয়ে আসা হলো মেলায়। ওরা ঘুরল, বেড়াল, শিখল।”

পুরো মেলাপ্রাঙ্গণ ঘুরে দেখার সময় জাফর ইকবাল তার ক্ষুদে ভক্তদের অটোগ্রাফ দেন, তাদের সেলফির আবদার মেটান।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন - dainik shiksha এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ - dainik shiksha মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন - dainik shiksha মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website