ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাত কলেজ বাতিল করার দাবি উঠছে কেন? - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাত কলেজ বাতিল করার দাবি উঠছে কেন?

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাতটি কলেজের অন্তর্ভুক্তি বাতিলের দাবীতে গত পাঁচদিন ধরে টানা বিক্ষোভ করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা। দুইদিন ধরে টানা বিক্ষোভে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক এবং একাডেমিক ভবনে তারা তালা লাগিয়ে দিয়েছে। সোমবার (২২ জুলাই)  এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিবিসি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাবরিনা সুলতানা বলছেন, "অনেক সময় আমাদের শিডিউল ক্লাস হয় না। শিক্ষকরা সাত কলেজে ভাইভা নিতে যান, তাদের পরীক্ষার খাতা দেখেন।''

''আমাদের বিভাগের একজন শিক্ষক সাত কলেজের পরীক্ষা কমিটির সদস্য ছিলেন। তাই আমাদের যেকয়টি ক্লাস নেয়ার কথা ছিল সেগুলো নিতে পারেননি। এখন আমরা সিলেবাস শেষ না করে তো পরীক্ষা দিতে পারছি না"। প্রচণ্ড ক্ষোভ নিয়ে তিনি বলছিলেন।

এসব দাবিতে টানা পাঁচদিন ধরে বিক্ষোভ করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। গতদুই দিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করেছে তারা। তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে সব একাডেমিক এবং প্রশাসনিক

২০১৭ সালে ঢাকার ইডেন মহিলা কলেজ, ঢাকা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

কিন্তু কয়েকমাস আগে এই সাত কলেজের একাংশ শিক্ষার্থী দাবি করে যে, তারাও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হতে চায়। এই দাবিতে তারাও বিক্ষোভ করে।

বিক্ষোভে অংশ নেয়া একজন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী মুশফিকুর রহমান বলছিলেন, একদিনে তারা যেমন সেশন জটে পড়ছেন অন্যদিকে তাদের পরীক্ষার খাতা সঠিকভাবে মূল্যায়ন করা হচ্ছে না।

মি. রহমান বলছিলেন, "এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের সাথে একটা তামাশা শুরু করছে। আমাদের কলেজে কেমিস্ট্রি ডিপার্টমেন্টে সবাই ফেল করেছে , একজন পাশ করেছে। একটা ক্লাসে সবাই বাজে ছাত্র কীভাবে হয়?"

তিনি আরো বলছিলেন "তারা (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক) আমাদের ঠিক মত মূল্যায়ন করে করে না। আমাদের খাতা ফেল করে দেয়। আমার সাথে যে বন্ধুরা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনের কলেজে ছিল, তারা এখন বের হয়ে যাচ্ছে অথচ আমাদের কোন অগ্রগতি নেই"।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, একই প্রশাসনিক কর্মকর্তা এবং শিক্ষকদের এত বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীদের ক্লাস, পরীক্ষা সম্পন্ন করা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের জন্য অসম্ভব হয়ে পরছে। আর তার দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
তিন শর্তে অস্থায়ী এমপিও পাচ্ছে ১৭৬৩ প্রতিষ্ঠান, আলাদা পরিপত্র - dainik shiksha তিন শর্তে অস্থায়ী এমপিও পাচ্ছে ১৭৬৩ প্রতিষ্ঠান, আলাদা পরিপত্র প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি করতে হবে চর এলাকায়, আসছে চর ভাতা - dainik shiksha প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি করতে হবে চর এলাকায়, আসছে চর ভাতা ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা সংশোধনের সিদ্ধান্ত ২২ আগস্ট - dainik shiksha ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা সংশোধনের সিদ্ধান্ত ২২ আগস্ট বিএড ৩য়-৫ম সেমিস্টারের ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৫ আগস্ট থেকে - dainik shiksha বিএড ৩য়-৫ম সেমিস্টারের ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৫ আগস্ট থেকে সাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তির আবেদন শুরু ১০ সেপ্টেম্বর - dainik shiksha সাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তির আবেদন শুরু ১০ সেপ্টেম্বর এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর - dainik shiksha এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে ঢাবিতে ১ম বর্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি - dainik shiksha ঢাবিতে ১ম বর্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website