নামধারী শিক্ষকরা জাতীয়করণের অন্তরায়: স্বাশিপ (ভিডিও) - সমিতি সংবাদ - দৈনিকশিক্ষা


নামধারী শিক্ষকরা জাতীয়করণের অন্তরায়: স্বাশিপ (ভিডিও)

মুরাদ মজুমদার |

কতিপয় নামধারী শিক্ষকরা শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের অন্তরায় বলে মন্তব্য করেছেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো: শাহজাহান আলম সাজু। খণ্ডকালীন ও ননএমপিও কতিপয় শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে পাঠদান বাদ দিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত। সাধারণ শিক্ষকদের বিভ্রান্ত করছেন নামধারী এই শিক্ষকরা।     শনিবার (১১ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে শাহজাহান আলম সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, মাদরাসা ও কারিগরি অধিদপ্তরে ও শিক্ষাবোর্ডসহ শিক্ষা প্রশাসনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে বেসরকারি শিক্ষকদের প্রতিনিধিত্ব দাবি করেছেন।

তিনি বলেন, শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ, বেসরকারী শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট ও অবসর সুবিধা বোর্ডে অতিরিক্ত চাঁদা কর্তনের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণ এবং বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহনের পূর্বে অতিরিক্ত চাঁদার অতিরিক্ত সুবিধা প্রদান করতে হবে। এছাড়া পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা, বাড়ী ভাড়া, মেডিকেল ভাতা প্রদান, নন এমপিও প্রতিষ্ঠানের এমপিও এবং শিক্ষা প্রশাসন থেকে স্বাধীনতা বিরোধীদের অপসারণ করতে হবে।

শাজাহান আলম সাজু বলেন,বর্তমান সরকার গত ১০ বছরে শিক্ষা নীতি প্রণয়ন, জাতীয় বেতন স্কেল প্রদান, বিনামূল্যে নতুন বই বিতরণ,অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক কর্মচারীদের জন্য কল্যাণ এবং অবসর বোর্ডে এক হাজার ৬২৭ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ প্রদান, ৫শতাংশ0 ইনক্রিমেন্ট, ২০ শতাংশ বৈশাখী ভাতা প্রদান,বাড়ী ভাড়া ও মেডিকেল ভাতা বৃদ্ধি করেছে। তবুও অনেক সমস্যা বিরাজমান। এসব সমস্যা সমাধানের একমাত্র উপায় শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণ।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন অধ্যক্ষ মোনতাজ উদ্দিন মর্তুজা, অধ্যক্ষ একেএম মোকসেদুর রহমান, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, আবদুল্লাহ আল মামুন, একেএম ওবায়দুল্লাহ, অধ্যক্ষ মিলন কুমার ঘোষাল, সামসুল ইসলাম, কর্মচারী সমিতির এম আরজু , শাজাহান খান প্রমুখ।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন - dainik shiksha এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ - dainik shiksha মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন - dainik shiksha মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website