আমাদের সঙ্গে থাকতে দৈনিকশিক্ষাডটকম ফেসবুক পেজে লাইক দিন।


পরীক্ষায় সাম্প্রদায়িক প্রশ্ন প্রণয়নকারীরা ১০ বছর নিষিদ্ধ

রাবি প্রতিনিধি | ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ | পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (২০১৭-১৮) শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় চারুকলা অনুষদের প্রশ্নপত্রে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর নির্যাতন ও ধর্মীয় গ্রন্থ নিয়ে সাম্প্রদায়িক উষ্কানিমূলক প্রশ্ন প্রণয়নের দায়ে অনুষদটির ডীনসহ দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। উভয়কে আগামী ১০ বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোন ধরণের পরীক্ষা কমিটিতে থাকতে পারবেন না বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর কে বি এম মাহবুবুর রহমান।
অভিযুক্ত শিক্ষকরা হলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডীন প্রফেসর মোস্তাফিজুর রহমান ও চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. জিল্লুর রহমান।
বুধবার ৪৭৪ তম সিন্ডিকেট সভায় উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান তিনি।
এদিকে প্রশ্ন প্রণয়নের দায়ে জিল্লুর রহমান নামের ঐ শিক্ষকের পরবর্তী পদোন্নতির সময় হলে সে সময় থেকে ৫ বছর পরে পদোন্নতি হবে বলেও সিদ্ধান্ত হয়। এদিকে ডীনের পদ থেকে অব্যাহতির জন্য যদি আইনগত বাধা না থাকে তাহলে ডীনকে অব্যাহতি দেওয়া হবে বলেও সিদ্ধান্ত হয়।
অন্যদিকে ইনস্টিটিউট অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (আইবিএ) এর শিক্ষক প্রফেসর হাছনাত আলীকে মারধরের ঘটনায় অভিযুক্ত সান্ধ্যকালীন এমবিএ ডে ৯ ব্যাচের শিক্ষার্থী নাহিদ হায়দারকে স্থায়ী বহিস্কার করা হয়েছে।
তবে শিক্ষক হাছনাত আলীকেও শিক্ষার্থীদের সাথে সদ্যবহার করার বিষয়েও সতর্ক চিঠি দেওয়াসহ চারুকলার প্রশ্নপত্র প্রণয়ন কমিটির অন্য সদস্যদের সতর্ক দেওয়া হবে বলে জানানো হয়।
উল্লেখ্য, গত ২৫ অক্টোবর চারুকলা অনুষদের (২০১৭-১৮) শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। চারুকলার ঐ পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের দুইটি প্রশ্নে সাম্প্রদায়িক উষ্কানি দেওয়া হয়েছে বলে প্রশ্ন উঠে। পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর পরীক্ষার কেন্দ্র থেকেই শিক্ষার্থীদের অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এনিয়ে বেশ সমালোচনার মুখে পরে বিশ^বিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ। মানববন্ধনও করে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা।

মন্তব্যঃ ৬টি
  1. শেখ মোঃ আশরাফ মোস্তফা says:

    আপত্তিকর জিনিসটা কি ? কেমনে বুজুম শাস্তিটা ন্যায় না অন্যায় হয়েছে ?

  2. মোঃ আতাউর রহমান মন্ডল, প্রভাষক, বালানগর কামিল মাদদরাসা,উপজেলাঃ বাগমারা, রাজশাহী says:

    হাইরে আমাদের সমাজ আর শিক্ষা ব্যবস্থা! বজ্র আঁটুনি ফস্কা গেরো আরকি

  3. প্রতাপ কুমার মন্ডল, সহকারী অধ্যাপক says:

    জ্ঞানপাপীদের উপযুক্ত শাস্তি প্রদানের জন্য কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই ।

  4. মোস্তাফিজুর, কচাকাটা, কুড়িগ্রাম says:

    বিষয়টা তো পরিষ্কার জানা হলো না।

  5. মো:হারূন উর রশীদ says:

    আপত্তিকর প্রশ্ন গুলো প্রকাশ করুন। নায়ত জনগণ ন্যায় অন্যায় কি ভাবে বুঝবে?

আপনার মন্তব্য দিন