প্রধানমন্ত্রীর কাছে এমপিওভুক্তির ঘোষণা চান অনার্স মাস্টার্স শিক্ষকরা - এমপিও - Dainikshiksha


প্রধানমন্ত্রীর কাছে এমপিওভুক্তির ঘোষণা চান অনার্স মাস্টার্স শিক্ষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক |

প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এমপিওভুক্তির ঘোষণা চেয়েছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বেসরকারি কলেজ সমূহে অনার্স মাস্টার্স কোর্সে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকরা।

মঙ্গলবার (২৪ এপ্রিল) বেলা বারোটার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘বেসরকারি কলেজের অনার্স-মাস্টার্স শিক্ষক ফোরামের’ ব্যানারে মানববন্ধনে তারা এ দাবি জানান। 

মানববন্ধনে শিক্ষকরা বলেন, গত বছরের মাঝামাঝি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো প্রণয়ন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু স্কুল-কলেজের এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামোতে অনার্স-মাস্টার্স কোর্সে কর্মরত শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির সুযোগ রাখা হয়নি। এর ফলে এমপিও বঞ্চিত হয়েছেন কলেজের অনার্স-মাস্টার্স কোর্সে কর্মরত সাড়ে তিন হাজার শিক্ষক। অথচ মাদরাসা জনবল কাঠামোতে মাস্টার্স সমতুল্য কামিল পর্যায় পর্যন্ত অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

শিক্ষকরা জানান, জটিলতা সৃষ্টির পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু কর্মকর্তার জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বেসরকারি কলেজ সমূহে অনার্স-মাস্টার্স কোর্সে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের জনবল কাঠামোতে অন্তর্ভুক্তির সুযোগ নেই। তাই, মানববন্ধন করে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দাবি করেছেন অনার্স-মাস্টার্স শিক্ষকরা। শিক্ষকরা আরও জানান, ‘এমপিওভুক্তির ঘোষণা না এলে প্রেসক্লাবের সামনে লাগাতার অবস্থান নেব’।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বেসরকারি কলেজের অনার্স-মাস্টার্স শিক্ষক ফোরামের আহ্বায়ক নেকবর হোসাইন, সদস্য সচিব মো. মোহরাব আলী, শিক্ষক মওদুদ আহাম্মেদ, সাদিকুর রহমান, আলাউদ্দিন সোহাগ, মাসুদ হোসেন, ইবনে হাসান রনি, এম মিলটন, সুলতান মাহমুদ, নাহিদ রেজা, বিপ্লব মন্ডল, দুলাল চন্দ্র কর্মকার, আশরাফুল ইসলাম, আরাফাত হক, করুনাশিষ গোপ প্রমুখ।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্তির দাবিতে ফের রাজপথে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু - dainik shiksha এমপিওভুক্তির দাবিতে ফের রাজপথে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন - dainik shiksha মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website