প্রধান শিক্ষকের নির্যাতনে মারা গেল শিশু শিক্ষার্থী - স্কুল - দৈনিকশিক্ষা


প্রধান শিক্ষকের নির্যাতনে মারা গেল শিশু শিক্ষার্থী

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি |

খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে প্রধান শিক্ষকের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়ে চিকিৎসার জন্য ভারতে পাঠিয়েও বাঁচানো গেল না স্কুলছাত্র হোসেন আলীকে। গত শুক্রবার (১৪ জুন) রাতে ভারত থেকে লাশ আসার পর মহালছড়ির গ্রামের বাড়ি সিলেটি পাড়ায় তাকে দাফন করা হয়। এ ঘটনায় ওই গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। 

ওই স্কুলছাত্রের বাবা মো. শফিউল আলম জানান, ৫ম শ্রেণির ছাত্র হোসেন আলীকে প্রধান শিক্ষক তার বাসায় প্রাইভেট পড়াতেন। ২ দিন ধরে পড়তে না যাওয়ায় প্রধান শিক্ষক তাকে ৩১০ বার কান ধরে ওঠ-বস করায়। এ শাস্তির পর আবারও ২০ মিনিট ধরে তাকে হাটুর নিচে মাথা রেখে শাস্তি দেন ওই শিক্ষক।

এ সময় ওই ছাত্রের মুখ দিয়ে লালা বের হয়ে অজ্ঞান হয়ে গেলে তাকে প্রথমে খাগড়াছড়ি ও পরে চট্টগ্রাম চিকিৎসা দেয়া হয়। সবশেষে ভারতের চেন্নায়ে পাঠানো হয় গত মে মাসে। সেখানে ১ মাস চিকিৎসার পর হোসেন আলী মৃত্যুর মুখে ঢলে পরে।

মো. শফিউল আলম আরও জানান, ইউপি চেয়ারম্যান রতন শীলসহ ভারতের চেন্নাইয়ে যাওয়ার আগে শিক্ষা অফিসে এক বৈঠক হয়। এ বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অভিযুক্ত ওই শিক্ষক ছাত্র হোসেন আলীর চিকিৎসার জন্য ১ লাখ টাকা দেন। 

মহালছড়ি উপজেলার শিক্ষা অফিসার দিপিকা খীসা জানান, অভিভাবকরা আমাকে একটা লিখিত অভিযোগ করেছেন। সে অনুযায়ী আমরা প্রাথমিকভাবে ছাত্রকে শাস্তি দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছি। তবে ইউপি চেয়ারম্যানের বৈঠকের পরও ছাত্রের চিকিৎসার জন্য ১ লাখ টাকা অভিভাবকের কাছ দেয়ায় তদন্ত কাজ স্থগিত হয়ে যায়। তবে অভিভাবকরা ফের চাইলে নতুন করে তদন্ত শুরু করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। 

এদিকে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মো. মহিন উদ্দিন খন্দকার বলেন, মানবিক কারণে আমি চিকিৎসার জন্য টাকা দিয়েছি। তবে তিনি কত টাকা দিয়েছেন তা এড়িয়ে যান। 




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
মাদরাসা শিক্ষকদের জুন মাসের এমপিওর চেক ছাড় - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষকদের জুন মাসের এমপিওর চেক ছাড় স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের জুনের এমপিওর চেক ছাড় - dainik shiksha স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের জুনের এমপিওর চেক ছাড় শিক্ষার্থীর সংখ্যার ভিত্তিতে স্কুলের তথ্য চেয়েছে অধিদপ্তর - dainik shiksha শিক্ষার্থীর সংখ্যার ভিত্তিতে স্কুলের তথ্য চেয়েছে অধিদপ্তর আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে বন্যা দুর্গত এলাকায় স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে বন্যা দুর্গত এলাকায় স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার নির্দেশ তিন শিক্ষকের ডাবল এমপিও : দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর অধ্যক্ষকে শোকজ - dainik shiksha তিন শিক্ষকের ডাবল এমপিও : দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর অধ্যক্ষকে শোকজ দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর : তথ্য গোপন করে নেয়া অনুদানের টাকা ফেরত - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর : তথ্য গোপন করে নেয়া অনুদানের টাকা ফেরত জটিলতার দ্রুত সমাধান চান এমপিওবঞ্চিত শিক্ষকরা - dainik shiksha জটিলতার দ্রুত সমাধান চান এমপিওবঞ্চিত শিক্ষকরা প্রভাষকের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদে চাকরির অভিযোগ - dainik shiksha প্রভাষকের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদে চাকরির অভিযোগ শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান - dainik shiksha শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক - dainik shiksha বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে - dainik shiksha শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website