বিদ্যালয় ভবন নির্মাণে জটিলতা কত প্রকার ও কী কী - মতামত - Dainikshiksha


বিদ্যালয় ভবন নির্মাণে জটিলতা কত প্রকার ও কী কী

নিজস্ব প্রতিবেদক |

প্রত্যন্ত ও দুর্গম অঞ্চলের বিদ্যালয় জরাজীর্ণ ও ভঙ্গুর হইয়া পড়ায় বৃক্ষতলে পাঠদান চলিতেছে—এইরূপ খবর আমরা প্রায়শই দেখিতে পাই সংবাদপত্রের পাতায়। কিন্তু একটি বড় শহরের বিদ্যালয়ের ক্লাস হইতেছে ক্লাবঘরের বারান্দায়—এই ধরনের সংবাদ খুব একটা দেখা যায় না। বগুড়া শহরের লতিফপুর কলোনিতে অবস্থিত প্রীতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হইল সেই বিদ্যালয়, প্রতিষ্ঠার ৪০ বছর অতিক্রান্ত হইবার পরও যাহার নিজস্ব কোনো ভবন নাই। নিজস্ব ভবন না থাকায় শিক্ষার্থীর সংখ্যা আড়াই শত হইতে হ্রাস পাইয়া চার ভাগের একভাগ ৭২ জনে আসিয়া ঠেকিয়াছে। দুইশত বর্গফুটের একটি ক্লাব ঘর ও বারান্দায় শিক্ষাদানের কার্যক্রম পরিচালিত হইতেছে।

ইত্তেফাকে প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা হয় ১৯৭৩ সালে। ১৯৭৮ সালে ইহার সরকারিকরণ হয়। অবাঙালি বিহারিদের মালিকানাধীন একটি ভবন স্বাধীনতার পর পরিত্যক্ত হয় এবং সেই পরিত্যক্ত ভবনে বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। সেই ভবনটিও ঝুঁকিপূর্ণ হইয়া উঠিলে ২০১৩ সালে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ে নূতন ভবন নির্মাণের জন্য আবেদন করা হয়। ২০১৪ সালে নূতন বিদ্যালয় ভবন নির্মাণের জন্য ৪৮ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়াছিল প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। পুরাতন ভবন ভাঙিয়া নিলামে বিক্রয়ের পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর নূতন বিদ্যালয় ভবন নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান করে। কিন্তু জমিটির মালিকানা দাবি করিয়া নূতন ভবন নির্মাণে বাধা দেয় গণপূর্ত অধিদপ্তর বগুড়া কার্যালয়। ফলে নির্মাণ কাজ আর আগাইতে পারে নাই। সেই সময় বগুড়া জেলা প্রশাসনের মধ্যস্থতায় গণপূর্ত বিভাগের সঙ্গে বেশ কয়েকবার বৈঠকের পর এই দফতরের সুপারিশ লইয়া জমিটি শিক্ষা বিভাগের নিকট হস্তান্তরের একটি প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। কিন্তু আজ অবধি বিষয়টির সুরাহা হয় নাই। ফলে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলিতেছে ক্লাবঘরে। ছয়জন শিক্ষক বসিবার জন্য এবং পাঁচটি শ্রেণির শিক্ষার্থীর ক্লাস করিবার জন্য ওই দুইশত বর্গফুটের একটিই কক্ষ রহিয়াছে। বারান্দায় ক্লাস লওয়া ছাড়া আর উপায় কী?

প্রতিষ্ঠার ৪৫ বত্সর পরও একটি বিদ্যালয়ের নিজস্ব ভবন নাই, ইহা বড়ই আশ্চর্যের ! একবিংশ শতাব্দীর বাংলাদেশে উনবিংশ শতাব্দীর বাস্তবতা বিরাজ করিতেছে যেন! একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে গড়িয়া তুলিতে গিয়া একই সরকারের দুই অধিদফতরের বিবাদ হইয়া উঠিয়াছে প্রধান বাধা, ইহা কেমন কথা? নূতন ভবনের জন্য অর্থ বরাদ্দ হইয়াছে, কিন্তু গণপূর্ত অধিদফতর হাজির হইয়াছে জমির মালিকানার দাবি লইয়া। তাহা হইলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এই মালিকানার বিষয়টি এতদিন স্থির করিবার উদ্যোগ নেয় নাই কেন? জেলা প্রশাসন মধ্যস্থতা করিয়াছে, কিন্তু জেলা ও উপজেলার শিক্ষা বিভাগ এতদিন কী দায়িত্ব পালন করিল? প্রতিটি বিদ্যালয়ের জমির মালিকানা কি তাহারা স্বাধীনতার এত বত্সর পরও নিশ্চিত করে নাই? কেন্দ্রীয় শিক্ষা বিভাগ সারা দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জমির মালিকানা সুনিশ্চিত করিবার কোনো নীতি গ্রহণ করিয়াছে কি? সকল বিভাগ যদি তাহাদের নিজ নিজ দায়িত্ব ঠিকঠাক পালন করিত, তাহা হইলে এই প্রশ্নগুলিই উঠিত না। এক্ষণে এই বিদ্যালয় ভবনটি নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করিতে হইবে অবিলম্বে।

 

সৌজন্যে: ইত্তেফাক




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় এমসিকিউ বাতিল - dainik shiksha প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় এমসিকিউ বাতিল এইচএসসির টেস্ট পরীক্ষার ফল ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকাশের নির্দেশ - dainik shiksha এইচএসসির টেস্ট পরীক্ষার ফল ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকাশের নির্দেশ স্ত্রীর মৃত্যুতে আজীবন পেনশন পাবেন স্বামী - dainik shiksha স্ত্রীর মৃত্যুতে আজীবন পেনশন পাবেন স্বামী ২০ হাজার টাকায় শিক্ষক নিবন্ধন সনদ বিক্রি করতেন তারা - dainik shiksha ২০ হাজার টাকায় শিক্ষক নিবন্ধন সনদ বিক্রি করতেন তারা অকৃতকার্য ছাত্রীকে ফের পরীক্ষায় বসতে দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha অকৃতকার্য ছাত্রীকে ফের পরীক্ষায় বসতে দেয়ার নির্দেশ আইডিয়াল স্কুলে ভর্তি ফরম বিতরণ শুরু - dainik shiksha আইডিয়াল স্কুলে ভর্তি ফরম বিতরণ শুরু নির্বাচনের সঙ্গে পেছাল সরকারি স্কুলের ভর্তি - dainik shiksha নির্বাচনের সঙ্গে পেছাল সরকারি স্কুলের ভর্তি দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website