বিনামূল্যের ১ সেট বই ২৫০ টাকা! - বই - Dainikshiksha


বিনামূল্যের ১ সেট বই ২৫০ টাকা!

বালিয়াডাঙ্গী(ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি |

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে সরকারের দেয়া বিনামূল্যের  বই পেতে টাকা দিতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। বুধবার (২ জানুয়ারি) দুপুরে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বড়পলাশবাড়ী ইউনিয়নের মোড়লহাট জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এমন অভিযোগ করেন। 

ওই বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী জসিম উদ্দীন। সে মোড়ল হাট এলাকার মাসুদ রানা ছেলে। জসিম উদ্দীন ও তার বন্ধুরা বই নিয়ে বিদ্যালয় থেকে ফেরার পথে জানায়, বই পেতে ২৫০ টাকা দিতে হচ্ছে শিক্ষকদের। প্রতিটি শ্রেণির জন্য আলাদা আলাদা শিক্ষকদের টাকা পরিশোধ করলে নতুন বই দিচ্ছে, না হলে ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। 

৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী মাসুদা পারভীন বই নিয়ে ফেরার পথে জানতে চাইলে জানায়, তার কাছ থেকেও ২৫০ টাকা নেওয়া হয়েছে বই দেয়ার জন্য। 

বই নিয়ে ফেরার পথে কয়েকজন অভিভাবকের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, বিদ্যালয়ে ভর্তি করার পর থেকেই নতুন নতুন নিয়ম শিখছেন তারা। এক বছর পর পর নতুন শ্রেণিতে পুনরায় ভর্তির জন্য ফরম কিনতে হবে ৩০ টাকা দিয়ে, সরকারি ফ্রি বই পেতে ২৫০ টাকা লাগবে। এত নিয়মে বিরক্ত হচ্ছেন অভিভাবকরা। তাছাড়া শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় আগ্রহ বাড়াতে সরকারের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে নতুন বই বিতরণ করা হচ্ছে। টাকা নেওয়ার বিষয়টিতে শিক্ষার্থীরা হোচট খাচ্ছেন, মত প্রকাশ করেন কয়েকজন অভিভাবক। 

নবম শ্রেণির ছাত্র হাবিব, সায়েম আলী ও রাজু জানায়, টাকা দিয়ে বই নিতে হবে, এমনটা জানলে স্কুলে আসতাম না। শিক্ষকদের এমন কর্মকান্ডে লেখাপড়ায় মনযোগী হতেও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে তারা জানায়। 

হাবিব অভিযোগ করে বলেন, বাবা প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষকদের সাথে কথা বলেছেন। এর পরেও কোন লাভ হচ্ছে না। আমি আজকে টাকা জমা দিয়েছি। বই পাইনি। কালকে বই দিবে। দুপুর ১টা না বাজতেই স্কুল বন্ধ করে দিলো। কালকে স্কুলে আসতে বললো।

অভিযোগ অস্বীকার করে মোড়ল হাট জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোলাইমান আলী দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে জানান, কিছু লোক আমাদের পেছনে লেগে আছে বিদ্যালয়ে বদনাম ছড়ানোর জন্য। এরাই আমাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলছে। ২৫০ টাকা কিসের জন্য নেয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধান শিক্ষক বলেন, ওই টাকা সেশন চার্জ হিসেবে নেওয়া হচ্ছে।

তবে কোন ধরণের সেশন চার্জ নেওয়া যাবে না বলে জানান বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমান। তিনি দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, মোড়ল হাট জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিযোগ আমিও পেয়েছি। ইতিমধ্যে ব্যবস্থাও নেয়া হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি বিদ্যালয়ে যেন সেশন চার্জ নেওয়া বন্ধ করে, শিক্ষার্থীদের দ্রুত বিনামূল্যে বই বিতরণ শেষ করা হয়, সে তাগিদও প্রতিটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে দেওয়া হয়েছে। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদুর রহমান মাসুদ দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করতে সুবিধা হতো। ঘটনার সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া বলে জানান তিনি। 

 




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্তির দাবিতে ফের রাজপথে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু - dainik shiksha এমপিওভুক্তির দাবিতে ফের রাজপথে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন - dainik shiksha মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website