বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র জিসান হত্যা মামলায় একজনের স্বীকারোক্তি - বিবিধ - Dainikshiksha


বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র জিসান হত্যা মামলায় একজনের স্বীকারোক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক |

রাজধানীর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইসমাইল হোসেন জিসানের মৃতদেহ উদ্ধারের চার দিন পর এক ব্যক্তি হত্যার কথা স্বীকার করেছেন আদালতে। রোববার (২৬ মে) ঢাকার মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলামের আদালতে হাজির হয়ে হাসিবুর রহমান জবানবন্দি দেন।

পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে হাসিবুরের স্ত্রী সজনী ও তার বন্ধু শ্রাবণ ওরফে শাওনকেও গ্রেফতার করেছে।

গত ১২ মে রাজধানীর শ্যামলী থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইসমাইল হোসেন জিসান (২৪) নিখোঁজ হন। ২৩ মে গাজীপুরের কামারজুরি এলাকার একটি সেপটিক ট্যাংক থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

রাজধানীর শেরেবাংলানগর থানার এসআই সুজা নূর জানান, রাইড শেয়ারিং ’পাঠাও’-এ নিজের মোটরসাইকেল চালাতেন জিসান। গত ১২ মে জিসানকে ঢাকা থেকে হোটেল ব্যবসায়ী হাসিব নিজ এলাকায় গাজীপুরের কামারজুরি যাওয়ার জন্য ভাড়ায় নেন। এরপর থেকেই জিসান নিখোঁজ ছিলেন।

এ ব্যাপারে জিসানের বাবা বাদী হয়ে শেরেবাংলানগর থানায় মামলা দায়ের করেন। 

এসআই সুজা নূর জানান, গত ২৩ মে কামারজুরি এলাকা থেকে হাসিবুর রহমান নামে এক হোটেল ব্যবসায়ীকে আটক ও তার হেফাজত থেকে নিখোঁজ জিসানের মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যে একই দিন ওই এলাকার জনৈক জাহাঙ্গীর আলমের বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে জিসানের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জড়িত হাসিবুরের স্ত্রী সজনী ও তার বন্ধু শ্রাবণ ওরফে শাওনকে গ্রেফতার করা হয়। হাসিব স্থানীয় জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে সস্ত্রীক ভাড়া থাকতেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এসআই সুজা নূর আরও জানান, জিসানের মৃতদেহ উদ্ধারের চারদিন পর রোববার গ্রেফতারকৃত হাসিবুর ঢাকা সিএমএম আদালতে স্বীকারোক্তি দেন।

“তিনি ও অপর দুই সহযোগী মিলে জিসানকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করেন। পরে হাসিবের ঘরেই জিসানের গলায় দড়ি পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর তার ভাড়া বাসার সেপটিক ট্যাংকে লাশ গুম করেন বলে স্বীকারোক্তিতে বলেন।”

জিসান রাজধানীর ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শেষ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তিনি লেখাপড়ার পাশাপাশি রাইড শেয়ারিং পাঠাও চালাতেন। শ্যামলীর রোড ২ সম্বর সড়কের ১৬/ডি বাসায় বন্ধুর সঙ্গে থাকতেন।

তিনি গাজীপুরের গাছা থানার কাথোরা গ্রামের সাব্বির হোসেন শহীদের ছেলে। তার মা ভাতের হোটেলের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এইচএসসিতে পাসের হার ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ - dainik shiksha এইচএসসিতে পাসের হার ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ আলিমে পাস ৮৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ, ২ হাজার ২৪৩ জিপিএ-৫ - dainik shiksha আলিমে পাস ৮৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ, ২ হাজার ২৪৩ জিপিএ-৫ জিপিএ-৫ সাড়ে ৪৭ হাজার - dainik shiksha জিপিএ-৫ সাড়ে ৪৭ হাজার বেসরকারি চাকরিজীবীরাও ফ্ল্যাট পাবে : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha বেসরকারি চাকরিজীবীরাও ফ্ল্যাট পাবে : প্রধানমন্ত্রী একাদশে ভর্তিকৃতদের অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে - dainik shiksha একাদশে ভর্তিকৃতদের অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে যেভাবে এইচএসসির ফল সংগ্রহ করবে প্রতিষ্ঠানগুলো - dainik shiksha যেভাবে এইচএসসির ফল সংগ্রহ করবে প্রতিষ্ঠানগুলো স্কুল-কলেজ খোলা রেখে বন্যার্তদের আশ্রয় দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha স্কুল-কলেজ খোলা রেখে বন্যার্তদের আশ্রয় দেয়ার নির্দেশ অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো - dainik shiksha অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো ঢাবির ভর্তির আবেদন শুরু ৫ আগস্ট, পরীক্ষা ১৩ সেপ্টেম্বর - dainik shiksha ঢাবির ভর্তির আবেদন শুরু ৫ আগস্ট, পরীক্ষা ১৩ সেপ্টেম্বর শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website