মাদরাসায় নবসৃষ্ট পদ পূরণে টাকার হিসেব চেয়েছে মন্ত্রণালয় - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা


মাদরাসায় নবসৃষ্ট পদ পূরণে টাকার হিসেব চেয়েছে মন্ত্রণালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক |

মাদরাসার নতুন এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো অনুসারে নবসৃষ্ট পদগুলো পূরণে রোড ম্যাপ ও টাকার হিসেব বা আর্থিক সংশ্লেষের স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রস্তাব চেয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরকে চিঠি দিয়ে নবসৃষ্ট পদে নিয়োগের জন্য রোড ম্যাপ ও টাকার হিসেবের প্রস্তাব চাওয়া হয়েছে। কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ সূত্র দৈনিক শিক্ষাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। নতুন নীতিমালায় মাদরাসায় ৭১টি পদ সৃষ্টি করা হয়েছে বলে দৈনিক শিক্ষাকে জানিয়েছে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। 

মন্ত্রণালেয়ের কর্মকর্তারা দৈনিক শিক্ষাকে জানান, গত বছরের জুলাই মাসে বেসরকারি মাদরাসার এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো-২০১৮ জারি করা হয়। নতুন নীতিমালায় মাদরাসাগুলোতে বেশ কিছু পদ নতুন করে সৃষ্টি হয়েছে। নবসৃষ্ট এসব পদ পূরণে গত ১৭ জুন চিঠি দিয়ে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের কাছে নবসৃষ্ট পদ পূরণের রোড ম্যাপ ও টাকার হিসেব বা আর্থিক সংশ্লেষের স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রস্তাব চাওয়া হয়েছে। কর্মকর্তারা আরও জানান, গত ২৬ সেপ্টেম্বর মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের পাঠানো এক চিঠিতে এ বিষেয়ে নির্দেশনা চাওয়া হয়েছিল।

কর্মকর্তারা আরও জানান, বৃদ্ধিপ্রাপ্ত পদে পর্যায়ক্রমে নিয়োগ দেয়া হবে বলেও সিদ্ধান্ত রয়েছে মন্ত্রণালয়ের। কোন বছর কোন পদে নিয়োগ ও এমপিওভুক্ত করা হবে তা পৃথক আদেশ জারি করে জানানো হবে। এ লক্ষ্যে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের কাছে প্রস্তাব চাওয়া হয়েছে। সে প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে এ বিষয়ে আদেশ জারি করা হবে। 

এদিকে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা দৈনিক শিক্ষাকে জানান, গত বছর সেপ্টেম্বর মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরে আয়োজিত এ সেমিনারে নবসৃষ্ট ৭১টি পদে নিয়োগ ও এমপিওভুক্তি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মতামত নেয়া হয়েছিল। সে মতামতের প্রেক্ষিতে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগকে নবসৃষ্ট পদের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল বলেও জানান অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন - dainik shiksha এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ - dainik shiksha মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন - dainik shiksha মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website