আমাদের সঙ্গে থাকতে দৈনিকশিক্ষাডটকম ফেসবুক পেজে লাইক দিন।


শিক্ষক খাতায় উপস্থিত, বাস্তবে নেই

মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট) প্রতিনিধি | সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭ | স্কুল

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অনুপস্থিত থেকে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে ক্লাস ফাঁকি দিয়ে ব্যক্তিগত কাজ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর এ অনিয়মের অভিযোগ করেছেন উপজেলা শিক্ষা কমিটির সদস্য ও উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আজমিন নাহার।

জানা গেছে, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আজমিন নাহার গত মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) ১১৬ নং গাবতলা ইসলামাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১৮৭ নং জামিরতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শনে যান।

এ সময় স্থানীয় লোকজন ও অভিভাবকরা জানান, এ দ’ুটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলাম বাবলু ও হারুন অর রশিদ ১০ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে উপস্থিত হননি। অথচ তারা ঐদিন হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন।

তারা ঐদিন কোন ছুটি না নিয়ে ১০৩ নং গুলিশাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি অনুষ্ঠানে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আনিছুর রহমানের সফরসঙ্গী হন। সেখানে তারা সারাদিন কাটান।

এ অনিয়ম ও বিদ্যালয়ে উপস্থিত না হয়ে হাজিরা খতায় স্বাক্ষর করায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা শিক্ষা কমিটির সদস্য আজমিন নাহার। তিনি বিষয়টি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপ-পরিচালক খুলনাকে অবহিত করেন। পরিদর্শনের দিনও তাদের দু’জনকে বিদ্যালয়ে পাওয়া যায়নি।

মন্তব্যঃ ১৬টি
  1. এসএম আহমেদ says:

    এমন আরও অনেক শিক্ষক আছে যারা কয়েকদিন স্কুলে না এসে ও পরে সব সাক্ষর একসাথে দিয়ে দেয়।

  2. কল্যাণ, রামগতি says:

    চাকুরী যাবে না।

  3. এইচ,এম,জুয়েল মন্ডল( প্রভাষক)।কাঁঠালবাড়ী মোস্তাফিয়া ফাজিল মাদরাসা। গোবিন্দগঞ্জ, গাইবান্ধা। says:

    বড় বড় এমপি,মন্ত্রী সাহেবরা যখন এলাকা সফরে আসে তখন ঐ এলাকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অঘোষিত ছুটি থাকে এবং পরে খাতায় কি হয় সবাই ভালোই জানে।

  4. md shapon mia says:

    কিছু প্রধান শিক্ষক আছেন টাকা খেয়ে এসব অবৈধ কাজ করেন।

  5. ‌মোঃ আ‌নিসুর রহমান, প্রভাষক (ব্যবস্থাপনা), জুরানপুর আদর্শ ক‌লেজ, দাউদকা‌ন্দি, কু‌মিল্লা। says:

    আমা‌দের সবাই‌কে নৈ‌তিকতা‌বোধ সম্পন্ন হওয়া চাই।

  6. মোঃ মোস্তাফিজার রংপুর says:

    তাতে কি সরকারী চাকুরীজিবীদের এতসব লাগেনা।বড় জোরবদলি। যতদোষ নন্দঘোস বেসরকারীর খেত্রে।

  7. fajlu says:

    এত কিছু দেখার সময় কোথায়

  8. Bishnu Chandra Modak প্রভাষক,সুন্দরগঞ্জ কারিগরী বাণিজ্যিক কলেজ, গাইবান্ধা। says:

    এইচ এম জুয়েল মণ্ডল

  9. Sumon Mahmud says:

    অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অাছে যেখানে শিক্ষক হাজিরা খাতা অধ্যক্ষ সাহেব বাসায় রেখে দিয়েছেন। প্রভাষকদের কলেজে অাসতে হয়না, অধ্যক্ষের সাথে সুসম্পর্ক রাখলেই চলে।। তাছাড়া শুণ্য পদদগুলে অবৈধভাবে নিয়োগ দিতে সুবিধা হবে,। হায়রে দেশ!

  10. নাম আকাশ says:

    এরকম স্কুল আরো আছে ।

  11. Asad says:

    অামাদের দেশের প্রায় বেসরকারী কলেজের প্রভাষকগণ সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন off day ভোগ করেন,এটা অার নতুন কি? এটা রোধ করতে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠনে বায়মেট্রিক হাজিরা চালু করা উচিত।

  12. সামন্ত কুমার সেন says:

    ইঁদুর- বিড়াল খেলা কতদিন চলবে,সবাই শুধু তদারকি করেন।৯টা থেকে৪.৩০টা ক্লাস নিতে হয় শিক্ষকদেরই( শিক্ষক কিন্তু মানুষ তো) দুই শিফট।প্রাইমারী শিক্ষক হওয়ার অভিজ্ঞতা নিন,পরে মন্তব্য করুন,অন্যান্য সরকারি চাকুরীজীবিদের দিকে একবার নজর দিন,দেখবেন থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসছে,আঙ্গুল ফুলে ইতিমত বটগাছ।

  13. Likhon says:

    its very common scernerio in Bangladesh each and every schools and colleges so what…………………….

  14. সিরাজ says:

    যদি কেউ সকাল ৭টায় স্বাক্ষর করে!! অতঃপর নিজের মত,………….., কোন অসুবিধা আছে কী?
    স্বাক্ষর ও অফিসে অস্থানই এখন বেশী প্রাধান্য পাচ্ছে। কোন শিক্ষক শ্রেণিতে কত সময় কাটালো, পাঠদানে তার আন্তরিকতা কতটুকু, দেখার কেউ নেই। শুধু মেনেজ করে চলেন, তবেই ভাল শিক্ষক হিসেবে খ্যাতি ছড়িয়ে পড়বে।

  15. Jahid says:

    Sob …………….. Age chakri pete je gush dite hoy ta bondho koren. Kew school visite-a asle je gush dite hoy saita bondho Koren. Ahhhhhhhh vaat deoner vatar na kil deoner jom.

আপনার মন্তব্য দিন