শিক্ষক বদলিতে অনিয়মের অভিযোগ শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে - স্কুল - Dainikshiksha


শিক্ষক বদলিতে অনিয়মের অভিযোগ শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

বাগেরহাট প্রতিনিধি |

বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বদলিতে অনিয়মের অভিযোগ এসেছে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দির বিরুদ্ধে। টাকার বিনিময়ে বিধি অমান্য করে এ শিক্ষা কর্মকর্তা শিক্ষকদের বদলি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি জানিয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর শিক্ষকদের বদলি না করার আবেদনও করেছেন কয়েকজন প্রধান শিক্ষক।

জানা গেছে, যে সব স্কুলে ৪ জন বা তার কম শিক্ষক আছেন সেসব বিদ্যালয় থেকে শিক্ষক প্রতিস্থাপন না করে সাধারণভাবে বদলি না করার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু, প্রধান শিক্ষকদের অভিযোগ তা অমান্য করেছেন আশীষ কুমার নন্দি। প্রধান শিক্ষকরা জানান, ধানসাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪ জন শিক্ষক কর্মরত ছিলেন। সেখান থেকে মাহাফুজা আক্তারকে অন্য স্কুলে বদলি করা হয়। সন্নাসী বরিশাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪ জন শিক্ষকের মধ্য থেকে চম্পারানী হালদারকে অন্যত্র বদলি করেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দি। এছাড়াও উপজেলার আরও ১০টির অধিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের অন্যত্র বদলি করেন তিনি।

শিক্ষকরা জানান, এ বিষয়ে কয়েকজন প্রধান শিক্ষক জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কবির উদ্দিনের কাছে শিক্ষকদের বদলি না করার আবেদনও করেছেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে ত ৭ মে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কয়েকজন শিক্ষকের বদলির আদেশ বাতিল করে বিদ্যালয়ে ফিরিয়ে আনতে বলেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দিকে। দুই মাস অতিবাহিত হলেও তিনি বিষয়টি কর্ণপাত না করে নিজের জারি করা নিয়ম বহির্ভূত আদেশ বহাল রেখেছেন। যার ফলে ওইসব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

২১৫ নং সন্নাসী বরিশাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোস্তফা দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, আমার স্কুলে মাত্র ৪ জন শিক্ষক ছিল। সেখান থেকে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দি একজন শিক্ষককে তার পছন্দের জায়গায় বদলি করেন। বিধিবহির্ভূত বদলির বিষয়টি আমি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে লিখিতভাবে জানিয়েছি। তবে, কোন ফল পাইনি। এছাড়া বদলি হওয়া সহকারী শিক্ষক চম্পারানী হাওলাদার বদলিকৃত কর্মস্থলে যাওয়ার সময় আমার কাছ থেকে ছাড়পত্রও নেয়নি। 

১৩৩ নং ধানসাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. এনামুল হক দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিধিবহির্ভূতভাবে আমার স্কুলের একজন শিক্ষককে বদলি করেছেন। বদলি করার সময়ে আমাকে বলেছেন আমার বিদ্যালয়ে আরেকজন শিক্ষককে দিবেন কিন্তু তিনি দেননি।

১৭১ নং পূর্ব আমতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালমা আক্তার দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, আমার স্কুলে মাত্র তিনজন শিক্ষক ছিল। সেখান থেকে মিতা হালদার নামে একজন সহকারী শিক্ষককে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে। বর্তমানে মাত্র দুই জন শিক্ষকে বিদ্যালয় চালাতে খুব সমস্যা হচ্ছে।

তবে, বিধিবহির্ভূত শিক্ষক বদলির বিষয়চি অস্বীকার করে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দি দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, শিক্ষকদের নিয়মের মধ্যেই বদলি করা হয়েছে। তারপরও জেলা কর্মকর্তা মহোদয়ের নির্দেশ বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে। তবে অনিয়মের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করেন তিনি।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কবির উদ্দিন দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে বলেন, শিক্ষকদের বদলির বিষয়ে কোনো অনিয়ম মেনে নেয়া হবে না। মোরেলগঞ্জে সহকারী শিক্ষকদের বদলির বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। যার প্রেক্ষিতে ওইসব শিক্ষকদের বদলির আদেশ বাতিল করতে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দীকে চিঠি দেয়া হয়েছে।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
সরকারি স্কুলের ৪৯ শিক্ষককে বদলি - dainik shiksha সরকারি স্কুলের ৪৯ শিক্ষককে বদলি ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা সংশোধনের সিদ্ধান্ত ২২ আগস্ট - dainik shiksha ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা সংশোধনের সিদ্ধান্ত ২২ আগস্ট এক বছরেও সরকারি হয়নি শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরি - dainik shiksha এক বছরেও সরকারি হয়নি শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরি কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে প্রশ্নফাঁসের ৮ হোতার অবৈধ সম্পদের তালিকা করছে সিআইডি - dainik shiksha প্রশ্নফাঁসের ৮ হোতার অবৈধ সম্পদের তালিকা করছে সিআইডি ঢাবিতে ১ম বর্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি - dainik shiksha ঢাবিতে ১ম বর্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website