শ্রেষ্ঠ হিসেবে সনদপ্রাপ্ত মাদরাসাগুলোকে সরকারি করা হোক - মতামত - Dainikshiksha


শ্রেষ্ঠ হিসেবে সনদপ্রাপ্ত মাদরাসাগুলোকে সরকারি করা হোক

ড. মোহাম্মদ এমরান হোসেন |

বর্তমান সরকার শিক্ষা ও শিক্ষক বান্ধব সরকার। শিক্ষা ক্ষেত্রে বিপ্লব সৃষ্টির লক্ষ্যে এ সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ ভূয়সী প্রশংসার দাবিদার। শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য গৃহীত পদক্ষেপদগুলোর মধ্যে অন্যতম হল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরকারি করা। বিশেষত বঙ্গবন্ধুর পদাঙ্ক অনুসরণ করে তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেছেন। এটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

এরপরই যে সমস্ত উপজেলায় সরকারি বিদ্যালয় ও কলেজ নেই, সে সব উপজেলায় একটি করে বিদ্যালয় ও কলেজ সরকারি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এবং তা বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া প্রায় শেষের পথে। কিন্তু মাদরাসা সরকারিকরণের কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় মাদরাসা শিক্ষকগণ হতাশায় ভুগছিলেন এবং এটিকে বিমাতাসূলভ আচরণ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছিল। হঠাৎ করে দৈনিক শিক্ষা.কমের মাধ্যমে অবগত হলাম, মাদরাসা সরকারিকরণ শুরু হয়েছে। এটি নিঃসন্দেহে আনন্দের খবর। এজন্য সরকারকে, বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই।

তবে কেবল রাজনৈতিক বিবেচনাকে ভিত্তি না করে একটি নীতিমালার আলোকে সরকারিকরণের জন্য মাদরাসা বাছাই করা দরকার। এ ক্ষেত্রে আমাদের প্রস্তাবনা হলো, যে সব মাদরাসা জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৮-তে বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়েছে, সে সব মাদরাসাকে আগে বিবেচনা করা হোক। তারপর জেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ মাদরাসা, এরপর উপজেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ মাদরাসমূহকে জাতীয়করণ করা হোক। কারণ ১৪টি ইনডিকেটরের মাধ্যমে শ্রেষ্ঠ মাদরাসা বাছাই করা হয়েছে। কাজেই শ্রেষ্ঠ হিসেবে সনদপ্রাপ্ত মাদরাসাকে বাদ দিয়ে যদি অন্য প্রতিষ্ঠানকে সরকারি করা হয় তবে তা হবে সনদের অবমূল্যায়ন এবং দুঃখজনক। বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলো।

লেখক : অধ্যক্ষ, শংকরবাটী হেফজুল উলুম এফ. কে. কামিল মাদরাসা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন]

 




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
প্রতিষ্ঠান প্রধান ও সুপারিশপ্রাপ্তদের করণীয় - dainik shiksha প্রতিষ্ঠান প্রধান ও সুপারিশপ্রাপ্তদের করণীয় দুর্নীতিবাজরা সাবধান হয়ে যান: গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha দুর্নীতিবাজরা সাবধান হয়ে যান: গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী অর্ধাক্ষর শিক্ষকরা সিকিঅক্ষর শিক্ষার্থী তৈরি করছেন: যতীন সরকার - dainik shiksha অর্ধাক্ষর শিক্ষকরা সিকিঅক্ষর শিক্ষার্থী তৈরি করছেন: যতীন সরকার অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ নিয়োগ নিয়ে যা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ নিয়োগ নিয়ে যা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী ১৮১ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু - dainik shiksha ১৮১ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন ২০ ফেব্রুয়ারি - dainik shiksha স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন ২০ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ - dainik shiksha প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website