সিন্ডিকেটের খপ্পর, অফলাইনে তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি - এমপিও - Dainikshiksha


সিন্ডিকেটের খপ্পর, অফলাইনে তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক |

শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওভুক্তির আবেদন প্রক্রিয়াকরণ সম্পূর্ণ অনলাইনে করার নির্দেশনা থাকলেও এমপিওর দালাল সিন্ডিকেটের খপ্পরে পড়ে ডিগ্রির তৃতীয় শিক্ষকদের অফলাইনে এমপিওভুক্ত করা হচ্ছে। তৃতীয় শিক্ষকদের দায়ের করা একাধিক রিটের প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালতের দেয়া রায়ের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে ১৫৩ জন তৃতীয় শিক্ষকের এমপিওভুক্তি নিশ্চিত করে দালাল চক্র। এরপর আরও প্রায় পাঁচশ জন তৃতীয় শিক্ষককে এমপিওভুক্তির লক্ষ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে দিয়ে গত ২৮ আগস্ট একটি নির্দেশনা জারি করাতে সক্ষম হয় চক্রটি। চক্রের সদস্যদের মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এমপিও শাখা, শিক্ষা অধিদপ্তরের কলেজ শাখা ও জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ের কয়েকজন দালাল রয়েছেন।

২৮ আগস্ট শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে উপসচিব মো: কামরুল হাসান স্বাক্ষরিত আদেশে ডিগ্রির তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির নির্দেশনা দেয়া হয়। আদেশে বলা হয়, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ) এর শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন ভাতাদির সরকারি অংশ প্রদান এবং জনবল কাঠামো সম্পর্কিত নির্দেশিকা-২০১০ জারির পূর্বে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক ডিগ্রিস্তরে বিষয় অধিভুক্ত এবং ২০১০ খ্রিস্টাব্দের ৪ ফেব্রুয়ারি পূর্বে প্রচলিত বিধি মোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত তৃতীয় শিক্ষকদের জনবল কাঠামোর শর্তাদি পূরণ সাপেক্ষে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের আদেশের কপি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর পাঠানো হয়। দৈনিক শিক্ষার অনুসন্ধানে জানা যায়, আদেশের কপি পেয়েই নতুন ধান্দায় নেমেছে সিন্ডিকেট সদস্যরা। সর্বোচ্চ সংখ্যক এমপিওভুক্ত করাতে উঠে পড়ে লেগে যায়। সিন্ডিকেট সিদ্ধান্ত নেয় অনলাইনে আবেদন করলে ফাঁস হবে অনেক গোপন তথ্য। তাই অফলাইনে করার ধান্দা করে তারা। এরই অংশ হিসেবে আজ ৪ সেপ্টেম্বর ইএমআইএস সেলের সিনিয়র প্রোগ্রামার জামিলুরের কাছে মতামত জানতে চায় শিক্ষা অধিদপ্তরের বেসরকারি কলেজ শাখা। চিঠি পাওয়ার একঘন্টার মধ্যে অধিদপ্তরের জামায়াতপন্থী সাবেক মাধ্যমিক শাখার পরিচালক মো: এলিয়াছের উত্তরসূরি জামিলুর এই মর্মে মতামত যে, ‘তৃতীয় শিক্ষকদের অনলাইনে এমপিওভুক্ত করতে সফটওয়্যার বদলাতে হবে যা সময় ও ব্যয়বহুল। তাই এদের অফলাইনে এমপিওভুক্ত করা যায়।”   

   

জানতে চাইলে বেসরকারি শিক্ষক সমিতির নেতা মো: নজরুল ইসলাম রনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারভুক্ত সরকারি কলেজ ও স্কুল শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে দেয়া হয়। অথচ এমপিও এবং সফটওয়্যার বিষয়ে তাদের সামান্য ধারণাও থাকে না। অভিজ্ঞতা অর্জন করতে করতে আবার বদলি করে দেয়া হয়। মাঝখানে ভোগান্তির শিকার হন হাজার হাজার বেসরকারি শিক্ষক।’

নজরুল ইসলাম রনি আরো বলেন, ’১২ বছর আগে থেকে শুনি এমপিওর সফটওয়্যার বদলাতে হবে। আবার শুনলাম এলিয়াছ হোসেন আইটি বিশেষজ্ঞ। তাহলে তিনি কী করলেন গত সাড়ে তিন বছর? কেন সফটওয়্যারে সব রকমের অপশন রাখা হয় না?’ 

জানা যায়, ডিগ্রি কলেজের প্রতিটি বিষয়ের দুইজন শিক্ষককে এমপিওভুক্ত করা হয়। জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী বিষয় প্রতি আরও একজন শিক্ষক (তৃতীয় শিক্ষক) নিয়োগ দিতে পারলেও সেই শিক্ষক এমপিও (বেতন-ভাতার সরকারি অংশ) পেতেন না। এমপিওভুক্তির নতুন নীতিমালায় তৃতীয় শিক্ষকের বেতন নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানকে বহন করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এমপিওর পুরনো নীতিমালায় তৃতীয় শিক্ষকদের বেতন-ভাতার সরকারি অংশের বিষয়টি স্পষ্ট না থাকায় শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতেন শিক্ষকরা।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
বেসরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha বেসরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ এমপিওভুক্ত হচ্ছেন আরও ২২৮ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন আরও ২২৮ শিক্ষক পাঁচ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ও বৈশাখী ভাতার আদেশ জারি - dainik shiksha পাঁচ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ও বৈশাখী ভাতার আদেশ জারি প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় এমসিকিউ  বাতিল - dainik shiksha প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় এমসিকিউ বাতিল স্ত্রীর মৃত্যুতে আজীবন পেনশন পাবেন স্বামী - dainik shiksha স্ত্রীর মৃত্যুতে আজীবন পেনশন পাবেন স্বামী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website