স্কুলে বরাদ্দকৃত টাকা আত্মসাতের অভিযোগ - বিবিধ - Dainikshiksha


স্কুলে বরাদ্দকৃত টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

বড়লেখা প্রতিনিধি |

বড়লেখার উত্তর বর্নি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা রুবিয়া বেগম, সাবেক সভাপতি রহিম উদ্দিন ও সাবেক প্রধান শিক্ষক আবদুল করিমের বিরুদ্ধে স্কুলের জন্যে সরকারি বরাদ্দের ৪০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। বর্তমান স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিসহ অন্যান্য সদস্য ও এলাকাবাসী এ অভিযোগ করেন।

জানা গেছে, উপজেলার স্কুল লেভেল ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের (স্লিপ) অংশ হিসেবে ৪০ হাজার টাকা সরকারি বরাদ্দ পাওয়া যায়। চলিত বছরের ৩০ জুন বরাদ্দকৃত টাকা স্কুলের সংশ্লিষ্ট ব্যাংক হিসাবে জমা দেয়া হয়। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি এ স্কুল থেকে সুড়িকান্দি প্রাইমারি স্কুলে বদলি হন তৎকালীন প্রধান শিক্ষক আবদুল করিম। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্ব পান তারই স্ত্রী সহকারী শিক্ষিকা রুবিয়া বেগম। প্রায় দেড় বছর আগে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন রহিম উদ্দিন বুদুর।

বর্তমান কমিটিকে অন্ধকারে রেখে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকা রুবিয়া বেগম, সাবেক প্রধান শিক্ষক আবদুল করিম ও সাবেক সভাপতি রহিম উদ্দিন বুদু গত ৩০ জুলাই গোপনে ব্যাংক থেকে স্লিপের ৪০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। সোনালী ব্যাংক বড়লেখা শাখা তাদের ৩ জনের স্বাক্ষরে টাকা উত্তোলনের বিষয়টি বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করেছে।

সরেজমিনে গিয়ে স্লিপের বরাদ্দের টাকায় স্কুলের কোনো উন্নয়ন কাজের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির বর্তমান সভাপতি আবদুল মোহিত বলেন, স্কুলের উন্নয়ন কাজের জন্য গত জুন মাসে ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ মেলে। কিন্তু ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকাকে এ টাকা উত্তোলনের ব্যবস্থা নিতে বারবার তাগিদ দিলেও তিনি ব্যবস্থা নেননি। পরে জানতে পারি তিনি, সাবেক প্রধান শিক্ষক আবদুল করিম ও সাবেক সভাপতি রহিম উদ্দিন যোগসাজশ করে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

স্কুলের সাবেক সভাপতি রহিম উদ্দিন বুদু জানান, প্রধান শিক্ষক আবদুল করিম গত ৩০ জুলাই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা রুবিনা বেগমের নামে ৪০ হাজার টাকার একটি চেকে স্বাক্ষর নিতে তার কাছে গেলে তিনি তাতে স্বাক্ষর করে দেন। তিনি ব্যাংকে যাননি। তারাই টাকা তুলেছে। পরে টাকা দিয়ে তারা কী করল না করল এর কিছুই তিনি জানেন না।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা রুবিয়া বেগম অত্যন্ত মানসিক চাপে রয়েছেন জানিয়ে এব্যাপারে কোনোকিছুই বলতে রাজি হননি। সাবেক প্রধান শিক্ষক আবদুল করিমের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার রফিজ মিয়া জানান, সাবেক সভাপতি ও বদলি হওয়া শিক্ষকের স্বাক্ষরে স্কুলের টাকা উত্তোলন সম্পূর্ণ অবৈধ। তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ির জনবল কাঠামো নীতিমালা - dainik shiksha প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ির জনবল কাঠামো নীতিমালা আলিমের নম্বর বণ্টন প্রকাশ - dainik shiksha আলিমের নম্বর বণ্টন প্রকাশ এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ৯০৯ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ৯০৯ শিক্ষক সরকারি হল আরও ৪৩ প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha সরকারি হল আরও ৪৩ প্রতিষ্ঠান পদোন্নতি পাচ্ছেন সরকারি হাইস্কুলের সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষক - dainik shiksha পদোন্নতি পাচ্ছেন সরকারি হাইস্কুলের সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষক বিশেষ মঞ্জুরীর টাকার আবেদন করা যাবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha বিশেষ মঞ্জুরীর টাকার আবেদন করা যাবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত টেস্টে ফেল করলে পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না - dainik shiksha টেস্টে ফেল করলে পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না শূন্যপদের চাহিদা পাঠানোর সময় ফের বাড়ল - dainik shiksha শূন্যপদের চাহিদা পাঠানোর সময় ফের বাড়ল দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website