স্কুলে না এসেও বেতন ভোগ! - স্কুল - দৈনিকশিক্ষা


স্কুলে না এসেও বেতন ভোগ!

অলোক সাহা, ঝালকাঠি |

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার হাইলাকাঠী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি স্কুলে না এসেও নিয়মিত বেতন উত্তোলন করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রধান শিক্ষক এইচ এম ফয়সালের যোগসাজশে দপ্তরি স্কুলে না এসেও বেতন পান বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

কয়েকজন অভিভাবক দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে জানান, বিদ্যালয়ের সভাপতি ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আ. খালেক হাওলাদার প্রভাব খাটিয়ে তার ছেলে মো. মনির হোসেনকে দপ্তরি পদে নিয়োগ পাইয়ে দেন। নিয়োগ পাওয়ার আগে থেকেই মনির হোসেন ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করেছেন। কিন্তু স্কুলে নিয়োগ পাওয়ার পরেও আগের চাকরি থেকে অব্যাহতি না নিয়ে যোগদান করেছেন তিনি। প্রাইভেট কোম্পানি থেকে মাঝে মাঝে ছুটি নিয়ে বিদ্যালয়ে আসেন ও মাস শেষে হাজিরা খাতায় পুরো মাসে স্বাক্ষর করেন এ দপ্তরি। আর এ কাজে তাকে সহায়তা করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এইচ এম ফয়সাল।

গত সোমবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দপ্তরী মনির হোসেন স্কুলে উপস্থিত নেই। হাজিরা খাতায় নয় দিন পর্যন্ত উপস্থিতির স্বাক্ষরও নেই। এলাকাবাসী আরও অভিযোগ করেন, স্কুলে কাগজে কলমে ছয়জন শিক্ষক থাকলেও বাস্তবে থাকে দুই জন। প্রধান শিক্ষকও মাঝে মাঝে স্কুলে এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে শিক্ষা অফিসে এটিও সাহেবের সাথে কাজ আছে বলে চলে যায়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত দপ্তরী মনির হোসেন অভিযোগটি মিথ্যা দাবি করে দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে জানান, আমার শারীরিক অসুস্থতার কারনে আমি স্কুলে উপস্থিত হতে পারিনি। 

হাজিরা দিয়ে স্কুলে না থাকার বিষয়ে প্রধান শিক্ষক এইচ এম ফয়সাল দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে জানান, ‘আমি স্কুলের কাজে উপজেলায় আসছি’। মনির হোসেনের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘ওকে ৩ দিনের ছুটি দিয়েছি।’ আপনি তাকে ছুটি দিতে পারেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মানবিক কারণে আমি তাকে ছুটি দিয়েছি।”                   

এ বিষয়ে স্কুলের ক্লাস্টারের দায়িত্বে থাকা  মো সাইফুর রহমান জানান, দপ্তরী মনির হোসেন কে সোকজ করা হয়েছে এবং প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। 




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২২ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৩৮১ - dainik shiksha করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২২ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৩৮১ দাখিলের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন যেভাবে - dainik shiksha দাখিলের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন যেভাবে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাস ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ - dainik shiksha এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাস ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ দাখিলে পাস ৮২ দশমিক ৫১ শতাংশ - dainik shiksha দাখিলে পাস ৮২ দশমিক ৫১ শতাংশ এসএসসি ভোকেশনালে পাস ৭২ দশমিক ৭০ শতাংশ - dainik shiksha এসএসসি ভোকেশনালে পাস ৭২ দশমিক ৭০ শতাংশ ১০৪টি প্রতিষ্ঠানে কেউ পাস করতে পারেনি - dainik shiksha ১০৪টি প্রতিষ্ঠানে কেউ পাস করতে পারেনি এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন ৭ জুনের মধ্যে - dainik shiksha এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন ৭ জুনের মধ্যে এখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলছে না : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha এখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলছে না : প্রধানমন্ত্রী ৬ জুন থেকে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির প্রক্রিয়া শুরুর প্রস্তাব - dainik shiksha ৬ জুন থেকে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির প্রক্রিয়া শুরুর প্রস্তাব নন-এমপিও শিক্ষকদের তালিকা তৈরিতে ৯ নির্দেশ - dainik shiksha নন-এমপিও শিক্ষকদের তালিকা তৈরিতে ৯ নির্দেশ কলেজে ভর্তি : দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha কলেজে ভর্তি : দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছুটি বাড়ল ১৫ জুন পর্যন্ত - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয়ের ছুটি বাড়ল ১৫ জুন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ১৫ জুন পর্যন্ত, ৩১ মে থেকে অফিস-আদালত খুলছে - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ১৫ জুন পর্যন্ত, ৩১ মে থেকে অফিস-আদালত খুলছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website