স্কুল পিয়ন হত্যাকারী কারাগারে - স্কুল - Dainikshiksha


স্কুল পিয়ন হত্যাকারী কারাগারে

ফেনী প্রতিনিধি |

ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পিয়ন মো. শফি উল্যাহ (৬০) কে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন মেহেদী হাসান রাব্বি।  

মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেলে ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসাইনের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাইন উদ্দিন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একাডেমি এলাকায় অভিযান চালিয়ে সোমবার (১০ জুন) রাতে বনানীপাড়া এলাকা থেকে রাব্বিকে গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার বিকেলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসাইনের আদালতে হাজির করলে হত্যার দায় স্বীকার করে রাব্বি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।  

জবানবন্দিতে রাব্বি বলেন, ৩০ মে ইফতারের আধা ঘণ্টা আগে বন্ধু রনি তাকে ফোন করে বলেন বাড়ির সামনে আসতে। তখন রনি ও তার ভাই সোহেল তাকে নিয়ে গাজীক্রস রোডের হক ম্যানশনের ভেতরে ঢুকেন। ঘরে ঢুকে বাইরের লাইটটি সোহেল বন্ধ করে দেন। একজন বয়স্ক লোক ঘরের ভেতরে খাটের উপর শোয়া ছিল।

সোহেল ঘরে ঢুকেই তাকে ধরে গামছা দিয়ে পা বেঁধে ফেলেন এবং রনি হাত বেঁধে ফেলেন। লোকটি চিৎকারের চেষ্টা করলে সোহেল চোখ, মুখ, নাক গামছা দিয়ে বেঁধে ফেলেন। ধস্তা-ধস্তির একপর্যায়ে লোকটি খাট থেকে নিচে পড়ে যান। এ সময় সোহেল চায়ের চামচ দিয়ে তাকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করতে থাকেন। রনি দা দিয়ে আঘাত করেন।   

লোকটির নড়াচড়া বন্ধ হয়ে গেলে আলমারি ভেঙে সোহেল এক লাখ টাকা, স্বর্ণ এবং একটি মোবাইল নিয়ে ইফতারের ১০-১৫ মিনিট আগে পালিয়ে যান। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় শফিকে লোকজন দেখে চোর চিৎকার শুরু করলে আমি সোহেল ও রনি ঘটনাস্থলে যাই। সেখান থেকে পুলিশ সোহেলকে গ্রেফতার করলে আমি আর রনি কৌশলে পালিয়ে যাই। ওইদিন রাত ১০টার দিকে রনি আমাকে ১০ হাজার টাকা দেন, বাকি টাকা পরে দেবেন বলে চলে যান।

ফেনী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহবুবুর রহমান জানান, রাব্বি হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। টাকার লোভে তারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন। সে ১০ হাজার টাকা ভাগে পেয়েছেন।

তিনি আরও জানান, রাব্বি লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর থানার মো. জয়নাল আবেদীনের ছেলে। ২ জুন ফারুক হোটেলের সামনে থেকে জাহিদুল ইসলাম হৃদয় ও সোহেল হাওলাদারকে গ্রেফতার করা হয়। এ হত্যাকাণ্ডে তিনজন অংশ নেন। সোহেলের ভাই রনিসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

৩০ মে রাত ১০টার দিকে শহরের বারাহীপুর গাজীক্রস রোডের হক ম্যানশন থেকে শফির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। 




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
বরিশাল বোর্ডে কর্মচারীদের দুই গ্রুপের হাতাহাতি - dainik shiksha বরিশাল বোর্ডে কর্মচারীদের দুই গ্রুপের হাতাহাতি রায় অমান্য করে মাছুমকে টাইমস্কেল: বরিশাল বোর্ড কর্মচারীদের বিক্ষোভ - dainik shiksha রায় অমান্য করে মাছুমকে টাইমস্কেল: বরিশাল বোর্ড কর্মচারীদের বিক্ষোভ ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে তুলতে হবে উচ্চ মাধ্যমিকের উপবৃত্তি - dainik shiksha ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে তুলতে হবে উচ্চ মাধ্যমিকের উপবৃত্তি প্রকল্পের ৬৩ কর্মচারীকে রাজস্বখাতে পদায়ন - dainik shiksha প্রকল্পের ৬৩ কর্মচারীকে রাজস্বখাতে পদায়ন প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়ও থাকছে না জিপিএ ৫ - dainik shiksha প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়ও থাকছে না জিপিএ ৫ এমপিওভুক্তিতে মহিলা কোটার পদ নির্ধারণে শাখাভিত্তিক আলাদা হিসাব নয় - dainik shiksha এমপিওভুক্তিতে মহিলা কোটার পদ নির্ধারণে শাখাভিত্তিক আলাদা হিসাব নয় শিক্ষকের বেতের আঘাতে চোখ হারাল মাদরাসাছাত্র - dainik shiksha শিক্ষকের বেতের আঘাতে চোখ হারাল মাদরাসাছাত্র জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স ভর্তির যোগ্যতা নির্ধারণ - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স ভর্তির যোগ্যতা নির্ধারণ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website