স্বতন্ত্র ইবতেদায়ির কাগজপত্র চাইলেন শিক্ষামন্ত্রী, আন্দোলন স্থগিত - সমিতি সংবাদ - Dainikshiksha


স্বতন্ত্র ইবতেদায়ির কাগজপত্র চাইলেন শিক্ষামন্ত্রী, আন্দোলন স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক |

সরকারিকরণ দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচিতে থাকা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির নেতাদের কাছে কাগজপত্র চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সোমবার (৮ এপ্রিল) সচিবালয়ে সমিতির দুই সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী একথা বলেন। বৈঠকে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন বলে শিক্ষক নেতাদের জানান শিক্ষামন্ত্রী। স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি মাওলানা হাফেজ কাজী ফয়েজুর রহমান ও মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান বৈঠকে অংশ নেন।

বৈঠক শেষে সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে জানান, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকদের দাবি দাওয়ার কাগজপত্র চেয়েছেন। আমাদের বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। বৈঠক শেষে ইবতেদায়ি নেতারা চলমান আন্দোলন স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। 

রোদ, ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে গত ১ এপ্রিল থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সরকারিকরণের দাবিতে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচির ৮ম দিনে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি শিক্ষা নেতাদের সাথে আলোচনা করেন শিক্ষামন্ত্রী।

আরও পড়ুন: ইবতেদায়ি শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন শিক্ষামন্ত্রী

সমিতির সভাপতি মাও. হাফেজ কাজী ফয়েজুর  দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, ১৯৯৪ খ্রিষ্টাব্দে একই পরিপত্রে রেজিস্ট্রার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও  স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদারাসা শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। বিগত সরকারের সময়ে ধাপে ধাপে বেতন বৃদ্ধি হতে হতে ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দে ২৬ হাজার ১৯৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারি করে সরকার। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সরকারি একই সিলেবাসে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা হয় স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসাগুলোতে। প্রাথমিকের ন্যায় ৫ম শ্রেণিতে ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে শিক্ষার্থীরা। প্রাথমিকের শিক্ষকের মতোই সরকারি বিভিন্ন কাজে অংশ নেন মাদরাসা শিক্ষকরা। অন্তত মাস শেষে প্রাথমিকের শিক্ষকরা ২২ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতন পায়। কিন্তু ইবতেদায়ি শিক্ষকরা তেমন কোনো বেতন পায় না। তবুও তারা প্রাথমিক শিক্ষকদের ন্যায় তাদের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

এদিকে, বিকাল ৪ টায় শিক্ষকদের আরেকটি সংগঠন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরীর নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ও উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর সাথে তাদের দাবির বিষয় নিয়ে সাক্ষাৎ করেন। শিক্ষামন্ত্রী তাদের আশ্বস্থ করে বলেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের বিষয়ে কথা বলব। শিক্ষক নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমিতির মহাসচিব তাজুল ইসলাম ফরাজী, সদস্য আরিফ বিল্লাহ ও আলামিন মারুফ।

কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী বলেন, আমাদের দাবির মধ্যে রয়েছে, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা নীতিমালা ২০১৮ সংশোধন করে সহজ শর্তে সরকারিকরণ করা, বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃতি নবায়নের সহজ আইন প্রণয়ন করা, পূর্বের নিয়ম অনুযায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত সকল শিক্ষককে বহাল রাখা, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার স্থায়ী রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করা, ২ জন আলিম শিক্ষকের মধ্যে ১ জন এইচএসসি (সমমান) শিক্ষক অন্তর্ভুক্তিকরণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো প্রতিটি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার অফিস সহায়ক নিয়োগ প্রদান, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের পিটিআই ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, ইবতেদায়ি মাদরাসার আসবাবপত্রসহ ভবন নির্মাণ। মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের কোডপ্রাপ্ত ৬ হাজার ৯৯৮ ও মন্ত্রণালয়ের আবেদন করা মাদরাসাগুলোকে কোড প্রদান করে সব মাদরাসাকে সরকারিকরণ করা।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনে আবেদনের সময় শেষ হচ্ছে কাল - dainik shiksha ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনে আবেদনের সময় শেষ হচ্ছে কাল পরবর্তী শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে যা বললেন এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান (ভিডিও) - dainik shiksha পরবর্তী শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে যা বললেন এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান (ভিডিও) পাবলিক পরীক্ষায় আসছে বেশ কিছু পরিবর্তন - dainik shiksha পাবলিক পরীক্ষায় আসছে বেশ কিছু পরিবর্তন কামিল ও ফাজিলের ফল প্রকাশ - dainik shiksha কামিল ও ফাজিলের ফল প্রকাশ বুয়েট ভিসির কার্যালয়ে শিক্ষার্থীদের তালা - dainik shiksha বুয়েট ভিসির কার্যালয়ে শিক্ষার্থীদের তালা রাজধানীর সকল ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এক মাসের মধ্যে সরিয়ে নিতে হবে: হাইকোর্ট - dainik shiksha রাজধানীর সকল ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এক মাসের মধ্যে সরিয়ে নিতে হবে: হাইকোর্ট ডিগ্রি ২য় বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো - dainik shiksha ডিগ্রি ২য় বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো ফলমূলে রাসায়নিক পদার্থ মেশানো বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হাইকোর্টের নির্দেশ - dainik shiksha ফলমূলে রাসায়নিক পদার্থ মেশানো বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হাইকোর্টের নির্দেশ পাবলিক পরীক্ষায় পাস নম্বর ৪০ করার উদ্যোগ - dainik shiksha পাবলিক পরীক্ষায় পাস নম্বর ৪০ করার উদ্যোগ সার্টিফিকেট ছাপার আগেই ২ কোটি টাকা তুলে নিলেন ছায়েফ উল্যাহ - dainik shiksha সার্টিফিকেট ছাপার আগেই ২ কোটি টাকা তুলে নিলেন ছায়েফ উল্যাহ ৫ বছরে পৌনে দুই লাখ শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে - dainik shiksha ৫ বছরে পৌনে দুই লাখ শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে প্রাণসহ ৫ কোম্পানির নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি, সাত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা - dainik shiksha প্রাণসহ ৫ কোম্পানির নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি, সাত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website