‘মায়ের ইচ্ছা পূরণেই আজ ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ’ - বিবিধ - Dainikshiksha


মা দিবস আজ‘মায়ের ইচ্ছা পূরণেই আজ ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ’

মুরাদ মজুমদার |
সুযোগ এসেছিল অনেক। শিক্ষা প্রশাসনের ডাকসাইটে কর্মকর্তা হওয়ার হাতছানি। সহকর্মীরাও চেয়েছেন নানান পদে যান তিনি। কিন্তু কোনো কিছুই তোয়াক্কা করেননি। মন পরে ছিল একজনের চাওয়াতেই। আর তা হলো মায়ের ইচ্ছের কথা। এ যেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেই ইচ্ছা পূরণের কাব্যকথা। যে মানুষটি মাকে এমন উচ্চাসনে বসিয়েছেন তিনি শিক্ষাবিদ নেহাল আহমেদ। হ্যাঁ, বলছিলাম ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক নেহাল আহমেদ-এর কথা। রত্নগর্ভা মা আছিয়া আলমের ইচ্ছা, সন্তান বড় হয়ে শিক্ষকতা করবে। ব্যাস, মায়ের এই ইচ্ছাকে ভেতরে লালন করে এত দূর এসেছেন অধ্যাপক নেহাল। শনিবার দৈনিক শিক্ষাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে নেপথ্যের সে কথাই বলেছেন তিনি।  শিক্ষা প্রশাসনের বড় পদে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও তা গ্রহণ করেননি ইংরেজির এই ডাকসাইটে অধ্যাপক। তাঁর রত্নগর্ভা মা বর্তমানে কিশোগঞ্জের মিঠামইনের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান। স্কুলজীবন থেকেই খেলাঘরসহ সব সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত এই গুণী মা চেয়েছেনে তাঁর ছেলে শিক্ষকতা করবে। শিক্ষা প্রশাসনের অফিসে চাকরি করার চাইতে দেশসেরা ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ হতে পারা অনেক বেশি সম্মানের-গৌরবের মনের করেন তাঁর মা।

ঐতিহ্যবাহী ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ হতে আগ্রহী শিক্ষা ক্যাডারের অনেক অধ্যাপকই। অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, শিক্ষা ক্যাডারের অনেকেই এবং সাংবাদিক বন্ধুরাও চেয়েছিলেন আমি যেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের বড় পদে যাই।

আরও পড়ুন: আজ বিশ্ব মা দিবস

বিভিন্ন মহল থেকে যখনই এ আলোচনা উঠেছে আমি বরাবরই আমার মা ও মামাদের ইচছার কথা মনে রেখেছি। দৃঢ় থেকেছি। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরসহ শিক্ষা প্রশাসনের অনেক পদে যেতেই অনেক সহকর্মী ও বন্ধুরা উৎসাহ দিলেও তিনি কখনো তা চাননি।

৫ মে নেহাল আহমদকে ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ পদে পদায়ন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর আগে কয়েকমাস ধরে তিনি এই কলেজের উপাধ্যক্ষ পদে ছিলেন। তিনি রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ভাগ্নে। ২০০১ খ্রিষ্টাব্দে বিএনপি-জামাত ক্ষমতায় এসেই নেহাল আহমদকে ঢাকার বাইরে বদলি করে। মিসপোস্টিং দিয়ে, নিয়মিত বেতন তুলতে না দিয়ে, একাধিক তদন্ত করিয়ে নেহাল আহমেদকে নানা ভোগান্তিতে ফেলেছেন তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী ড. এম ওসমান ফারুক। ২০০২ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত প্রত্যন্ত অঞ্চলের কলেজে চাকরি করতে হয়েছে তাঁকে। পদোন্নতি পাওয়ার পর ২০০৯ খ্রিষ্টাব্দে ফের ঢাকায় বদলি হয়ে আসার সুযোগ পান জনপ্রিয় ও নাট্যব্যক্তিত্ব নেহাল আহমেদ।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
প্রাথমিকে ৬১ হাজার শিক্ষকের পদ সৃষ্টি হবে - dainik shiksha প্রাথমিকে ৬১ হাজার শিক্ষকের পদ সৃষ্টি হবে দৈনিকশিক্ষার প্রতিবেদনে জাহাঙ্গীরকে ওএসডি - dainik shiksha দৈনিকশিক্ষার প্রতিবেদনে জাহাঙ্গীরকে ওএসডি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার রুটিন - dainik shiksha প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার রুটিন ভিকারুননিসায় ৪৪৩ অতিরিক্ত ভর্তি, সাবেক অধ্যক্ষকে শোকজ - dainik shiksha ভিকারুননিসায় ৪৪৩ অতিরিক্ত ভর্তি, সাবেক অধ্যক্ষকে শোকজ তিন শর্তে অস্থায়ী এমপিও পাচ্ছে ১৭৬৩ প্রতিষ্ঠান, আলাদা পরিপত্র - dainik shiksha তিন শর্তে অস্থায়ী এমপিও পাচ্ছে ১৭৬৩ প্রতিষ্ঠান, আলাদা পরিপত্র প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি করতে হবে চর এলাকায়, আসছে চর ভাতা - dainik shiksha প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি করতে হবে চর এলাকায়, আসছে চর ভাতা বিএড ৩য়-৫ম সেমিস্টারের ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৫ আগস্ট থেকে - dainik shiksha বিএড ৩য়-৫ম সেমিস্টারের ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৫ আগস্ট থেকে সাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তির আবেদন শুরু ১০ সেপ্টেম্বর - dainik shiksha সাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তির আবেদন শুরু ১০ সেপ্টেম্বর এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর - dainik shiksha এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে ঢাবিতে ১ম বর্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি - dainik shiksha ঢাবিতে ১ম বর্ষ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website