নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষায় মৌলিক প্রশ্ন - পরীক্ষা - Dainikshiksha


নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষায় মৌলিক প্রশ্ন

রুম্মান তূর্য |

শিক্ষক নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষায় ইংরেজি এবং অর্থনীতির মৌলিক বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা। রাষ্ট্রীয় আয় ও ব্যক্তিগত আয় কাকে বলে, লিনিয়ার প্রোগ্রামিং কী, অর্থনীতির দৃষ্টিকোণ থেকে ডাম্পিং কী, অর্থগত ও গঠনগত দিক থেকে সেন্টেন্স কত প্রকার ইত্যাদি মৌলিক বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষার্থীদের। 

রাজধানীর ইস্কাটনের বোরাক টাওয়ারে এনটিআরসিএ কার্যালয়ে  বৃহস্পতিবার (৫ জুলাই) ১০ম দিনের মতো নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয়। ইংরেজি ও অর্থনীতি বিষয়ে শিক্ষক নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষা দেন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা। ৮টি বোর্ড গঠন করে ৪৩১ জন প্রার্থীর মৌখিক পরীক্ষা নিয়েছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ। মৌখিক পরীক্ষা শেষে দৈনিক শিক্ষাকে নিজেদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন প্রার্থীরা। এসময় বেশিরভাগ পরীক্ষার্থীর মন্তব্য, মৌলিক বিষয়ে প্রশ্ন হওয়ায় পরীক্ষা ভালো হয়েছে।    

গাজীপুর থেকে আসা অর্থনীতি বিষয়ে শিক্ষক নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষার্থী মো: ইব্রাহীম রুবেল জানান, ‘বাজার কী জানতে চেয়েছেন। মনোপলি বাজার এবং ডুয়োপলি বাজার সম্পর্কে বলতে বলেছেন। আমার গ্রামের বাড়ি সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন।’ তিনি বলেন, ১৩তম নিবন্ধন পরীক্ষায় নিবন্ধিত শিক্ষক হয়েও ১৪তম নিবন্ধনে পরীক্ষা দিতে এসেছি।’ 

ফরিদপুর থেকে আসা সবুজ শেখ বলেন, ‘রাষ্ট্রীয় আয় ও ব্যক্তিগত আয় কাকে বলে, দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন জানতে চেয়েছেন। একটি লিনিয়ার প্রোগ্রামিং কী বলতে বলেছেন।” 

টাঙ্গাইল থেকে আসা মোঃ মিরাজ হাসান তালুকদার বলেন, ‘আমাকে গ্রামার থেকে প্রশ্ন করা হয়েছে। সাফিক্স প্রিফিক্স সম্পর্কে বলতে বলেছেন। কিছু নাউন দিয়ে সেগুলোর ভার্ব জানতে চেয়েছেন। একটি বাক্য সংশোধন করতে দিয়েছিলেন। ১৩তমতেও পরীক্ষা দিয়েছিলাম, আগের থেকে ভাইভা বোর্ড সহযোগী।”

গাজীপুর থেকে অর্থনীতি বিষয়ে নিবন্ধনের মৌখিক পরীক্ষা দিতে আসা রাসেল রানা বলেন, ‘অর্থনীতির দৃষ্টিকোণ থেকে ডাম্পিং কী জানতে বলেছেন। বর্তমান বাজেটের আকার সম্পর্কে বলতে বলেছেন। এটি বাংলাদেশ সরকার ও আওয়ামী লীগ সরকারের কততম বাজেট জানতে চেয়েছেন।” 

টাঙ্গাইল থেকে আসা মো: রফিকুর ইসলাম বলেন, ‘পার্টস অফ স্পিচ কাকে বলে জানতে চেয়েছেন। এ ছাড়া বিভিন্ন পার্টস অফ স্পিচ সম্পর্কে বলতে বলেছেন। সাহিত্য থেকে আমাকে প্রশ্ন করা হয়নি। তাছাড়া ভাইভা বোর্ডে এনটিআরসিতেও কর্মকর্তাদের ব্যবহার খুবই ভালো।”

টাঙ্গাইল থেকে আসা স্কুল পর্যায়ের ইংরেজি বিষয়ের প্রার্থী অব্দুল হামিদ বলেন, ‘গ্রামারে থেকে বেশি প্রশ্ন করা হয়েছে। ‘এভরি ডে’ কোন পার্টস্ অফ স্পিচ জানতে চেয়েছেন। ‘ব্লাড’ শব্দটির ভার্ব কি হবে বলতে বলেছেন। এ ছাড়া ইংরেজিতে নিজ সম্পর্কে বলতে বলেছেন।’ 

নওগাঁ থেকে আসা মো: শাহীন আলম বলেন, ‘আমার একাডেমিক জীবন সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। ইংরেজি সাহিত্য থেকে আমাকে প্রশ্ন করা হয়। ভিক্টোরিয়ান পিরিয়ড সম্পর্কে বলতে বলেছেন। ভিক্টোরিয়ান পিরিয়ডের অসুবিধা বা সমস্যা কী ছিল জানতে চেয়েছেন। এছাড়া ভিক্টোরিয়ান পিরিয়ডের বিভিন্ন কবির নাম বলতে বলেছেন। ম্যাথু আরনল্ডের লেখা একটি কবিতার নাম বলতে বলেছেন।’  

নাটোর থেকে আসা বিশ্বজিৎ কুমার বলেন, ‘গ্রামারের মৌলিক দিকগুলো থেকেই মূলত জানতে চেয়েছেন। সেন্টেন্স কী জানতে চেয়েছেন। অর্থগত ও গঠনগত দিক থেকে সেন্টেন্স কত প্রকার বলতে বলেছেন এবং প্রকারগুলো ব্যাখ্যা করতে বলেছেন। কমপ্লেক্স সেন্টেন্স কী জানতে চেয়েছেন।’

কুড়িগ্রাম থেকে আসা মো: আরিফুর রহমান বলেন, ‘নিজ জেলা সম্পর্কে বলতে বলেছেন। কুড়িগ্রাম জেলার নামকরণ সম্পর্কে বলতে বলেছেন। মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশন কীভাবে শিক্ষার্থীদের সহায়তা করে জানতে চেয়েছেন।’

টাঙ্গাইল জেলা থেকে আসা সৌরভ শিকদার জানান, ‘ভাইভাবোর্ড আমাকে একটি শ্রেণিকক্ষে আছি কল্পনা করে টেন্সের ওপর একটি ক্লাস নিতে বলেন। আমি ক্লাসটি নিয়েছি। ভাইভা বোর্ডের কর্মকতারা আমার ক্লাসে সন্তুষ্ট হয়েছেন বলেন আমার ধারণা।’
তিনি প্রথম থেকে চতুর্দশ নিবন্ধনের সমন্বিত মেধা তালিকা গঠেনের দাবি জানান সরকারের কাছে।    

টাঙ্গাইল থেকে আসা রিমন আহসান বলেন, ‘বিভিন্ন সেন্টেন্সের গঠন সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। বিভিন্ন ক্লজ সম্পর্কে বলতে বলেছেন। একটি বাক্য দিয়ে তার বিভিন্ন পার্টস অফ স্পিচ শনাক্ত করতে বলেছেন।”   

 

 

 

 

 




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
প্রতিষ্ঠান প্রধান ও সুপারিশপ্রাপ্তদের করণীয় - dainik shiksha প্রতিষ্ঠান প্রধান ও সুপারিশপ্রাপ্তদের করণীয় দুর্নীতিবাজরা সাবধান হয়ে যান: গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha দুর্নীতিবাজরা সাবধান হয়ে যান: গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী অর্ধাক্ষর শিক্ষকরা সিকিঅক্ষর শিক্ষার্থী তৈরি করছেন: যতীন সরকার - dainik shiksha অর্ধাক্ষর শিক্ষকরা সিকিঅক্ষর শিক্ষার্থী তৈরি করছেন: যতীন সরকার অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ নিয়োগ নিয়ে যা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ নিয়োগ নিয়ে যা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী ১৮১ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু - dainik shiksha ১৮১ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন ২০ ফেব্রুয়ারি - dainik shiksha স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন ২০ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ - dainik shiksha প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website