মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

Md.Shahin Alom, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
সরকারি চাকুরিতে প্রবেশের বয়স সীমা ৩৫ বছর করলে তা হবে জাতীর জন্য একটি যুগান্তকারি ইতিবাচক সাহসী ও দৃঢ় পদক্ষেপ। কারণ এটি এখন বেকার সমাজের প্রানের আকুতি। সবাই চায় সরকারি চাকুরিতে যোগদান করে দেশের স্বার্থে কিছু অবদান রাখতে কিন্তু অনেকের তা হয়ে ওঠেনা । কারণ থাকে কিছু সীমাবদ্ধতা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সরকারি চাকুরিতে প্রবেশের বয়স ৪০ বছর পর্যন্ত আছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো আজ চাকুরিতে প্রবেশের বয়স সীমা ৩০ নির্ধারন করে দেয়। এতে করে দেখা যায় বেকার সমস্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। চাকুরীর পরীক্ষায় ভালো করার জন্য ভালো একটা প্রস্তুতি নেওয়া দরকার। তাই চাত্রজীবন শেষে সময় দেখতে দেখতে শেষ হয়ে যায়।কারন আমাদের দেশে সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েশন করে বের হতেই ২৭-২৯ বছর লেগে যায়। সেই ক্ষেত্রে অনেকের জন্য সরকারি চাকুরিতে ভালো করাটা কষ্ট হয়ে যায়। আবার বেসরকারি চাকুরি তো ৩০ বছর পর্যন্ত বয়স সীমা তাহলে দেখা যায় বেকার সমস্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়া ছাড়া আর কিছুই দেখা যায়না। তাই সরকারি চাকুরিতে বয়স সীমা ৩৫ বৎসর এবং বেসরকারি চাকুরীতে প্রবেশের বয়সের সীমাবদ্ধতা দূর করা হোক।
Mohd. Kamal Hossain., ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
বাংলাদেশ একটি ছোট দেশ। কিন্তু এর জনসংখ্যা ব্যাপক। তাই সরকারি চাকুরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর এবং বেসরকারিতে বয়স না দেওয়ায় ভালো আর দিলেও ৫০ বছর করা উচিত। নইলে শিক্ষিত বেকার বেড়ে যাবে। ফলে দেশের জন্য হবে অভিশাপ। লক্ষ লক্ষ মায়ের কান্না।