মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

shahidullah, ২৯ অক্টোবর, ২০১৯
ময়মনসিংহ মহানগরের প্রাণ কেন্দ্র অব িস্থত আল আরাবীয়া দাখিল মাদরাসা 1993 সালে প্রতিষ্ঠার পরে 2001 অনুমতি ও 2004 সালে স্বীকৃতি পাওয়ার পর থেকে প্রতি বছর শতভাগ পাশ করা ও অধীক সংখ্যক বৃত্তিপ্রাপ্ত একমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দীর্ঘ 26বছর ধরে শিক্ষকবৃন্দ অন্ত্যন্ত দক্ষতার পাঠদান করে আসছে শুধু একাট আশায় এমপিও হবে কিন্তু2009 সালে ও পেলাম না এ বছর সকলেই অধীর আগ্রহভরে অপেক্ষা করে ছিলাম যে এ বছর মাননীয় সরকার বাহাদুর যে ৪ টি শর্ত জুরে দেয় তা সকল শর্ত পুরন হওয়া শত্তেও এমপিও বাদ পড়েছে তালিকায় না থাকায় সকলের পায়ের নীটচর মাটি সরে গেছে কারণ সকলের বয়স ৪০-৫৭ বছরের মধ্যে কিন্তু চাকরি আর হল না এ কী আজব দেশে বাস করছি ? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষা মন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন যে প্রকাশ হয়েছে যে এখন ও 415 কোটি টাকা অতিরিক্ত বরাদ্দ রয়েছে তাই আমার পরামর্শ যে এ বরাদ্দ থেকে আরও প্রতিষ্ঠান এমপিও করা হঊক ।
আফতাবুজ্জামান তাজ, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলার হাতিশোঁও আদিবাসী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি এমপিও নীতিমালার শর্ত পূরণ করলেও এমপিওভূক্তির তালিকাতে প্রতিষ্ঠানটির নাম নেই। অথচ শর্ত পূরণ না করেও এমপিওভূক্তির তালিকাতে নাম উঠেছে একই উপজেলার অন্য একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের।
khetlal khosbadom g,u alim madrasha, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
স্যার,আমার মনে হয়,বাছাই কমিটি বড় ধরনের ভুল করেছে,তাছাড়া কাম্য শিক্ষার্থী কোন ফাক্টর নয়,তাদের উচিত ছিল যে প্রতিষ্টান পরিক্ষার্থী ঠিক, রেজাল্ট ঠিক,স্বীকৃতি ঠিক, তাদের এমপিও দিলে এ ধরনের সমস্যা হতো না।তা ছাড়া স্যার আপনি দেখেছেন উত্তর অঞ্চলের একটি জেলা জয়পুরহাট,এই জেলাতে একটি আলিম মাদ্রাসা ও এমপিও তালিকায় নেই।যদি বাছাই কমিটি জেলা ভিত্তিক সকল ক্যাটাগড়ির একটি করে প্রতিষ্ঠান এমপিও তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতো,তাহলে বুঝা যেত,বাছাই হয়েছে,কিন্তু তাও করে নাই,,এরপরও কিভাবে মেনে নেওয়া সম্ভব, সঠিক আছে? বিষয়টি অবহিত করলাম।
মোহাম্মদ গোলাম মোর্শেদ, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
হাজী এম, এ জাহের উচ্চ বিদ্যালয় eiin 130059 এর ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ৬৫০জন, পাশের হার বিগত বছরগুলোতে ৭০-৯২%, প্রতিষ্ঠা ২০০২ সালে, জুনিয়র এমপিও ২০১০, বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হয়নি।