মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

Mst. Rashida Khanom, ১২ মার্চ, ২০২০
থানায়-উপজেলায় একটি/দুটি প্রতিষ্ঠান সরকারি করে পার্শ্ববর্তী অন্য বেসরকারি ১০টি প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি না করে প্রয়োজনে সব গুলোকে ১০%,২০%,৩০% অতঃপর জেলা শহরে ৪০%,৪৫%,৫০%( বর্তমানে সরকারি চাকুরীতে যেখানে যেমন আছে) ইত্যাদি বাড়ি ভাড়া প্রদান করলে ৫ বছরেই জাতীয়করণ করা যায়। বাকী থাকে উতসব বোনাস ও চিকিতসা ভাতা। তাও সরকার চাইলে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফী না কমিয়ে এ টাকা সরকারি কোষাগারে নিয়ে ১ বছরেই জাতীয়করণ করতে পারে। অতঃপর সরকারের সামর্থ বাড়লে সরকারি প্রতিষ্ঠানের ন্যায় শিক্ষার্থীর টিঊশন ফি কমানো যাবে।তবে আমলারা একাজ সহজে করতে দেবে নয়া। প্রশ্ন আসে সব প্রতিষ্ঠান জাতীয় করণ চায় না। তাদের এমপিও বন্ধ করে ঐ টাকা দিয়েও জাতীয়করণের একটা অংশ পুষিয়ে যাবে।
Hasan+Anwar, ০৯ মার্চ, ২০২০
দাবি হওয়া উচিত এক দফা।সরকারিকরণের সাথে বিভিন্ন দাবি জুড়িয়ে দেওয়ার অর্থই হলো সরকারিকরণকে নিরুৎসাহীত করা।আসলে শিক্ষকদের দূর্ভাগ্য ,আজো অকপট ও একনিষ্ঠ নেতৃত্ব তাদের ভাগ্যে জুটেনি।যদি কোন ঐশ্বরিক শক্তি এসে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর মনের উদারতাকে নাড়া দেয় তবেই সরকারিকরণ হতে পারে।অন্যথা,বর্তমান স্বার্থান্বেষি কপট নেতৃত্বের দ্বারা এদেশের এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ভাগ্যের ঘোর অমানিশা কাটার সম্ভাবনা ক্ষীনের থেকেও ক্ষীন।
shahidul islam, ০৯ মার্চ, ২০২০
মুজিববর্ষে সব এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারিকরণের দাবি সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।
rezaemostafa, ০৯ মার্চ, ২০২০
এভাবে কি কখনো দাবি আদায় হবে? আমাদের এমন শিক্ষক ভাইয়েরা আছেন যারা তেল না দিয়ে মচমচে খেতে চায় । সুতরাং তাদের চিহ্নিত করা দরকার।