মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

মোঃ আবদুর রহিম, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
প্রাথমিক ও মাধ্যমিক ক্যাটাগরির শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষার্থীদের সাবজেক্ট ভিত্তিক শিক্ষকরা তাদেরকে ধারাবাহিক মূল্যায়নের মাধ্যমে পরবর্তী ক্লাসে প্রমোশনের ব্যবস্থা করলে হয়তো ভালো হবে।
ইবৱাহীম পাটওয়ারী, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হলে এক্ষেত্রে আমার কিছু পরামর্শ রয়েছে৷ 1, 2020 খ্রিস্টাব্দের শিক্ষাবর্ষ কে ডিসেম্বরে শেষ না করে বরং 31 মার্চ 2021 পর্যন্ত দীর্ঘায়িত করা ৷ 2, পহেলা এপ্রিল থেকে 2021 খ্রিস্টাব্দের শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়ে একত্রিশে জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে৷ 3, 2020 খ্রিস্টাব্দের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা 1-2-2019 খ্রিস্টাব্দে শুরু হবে৷ 4, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সমূহ ,পবিত্র রমজানের আগেই শেষ করা যায় এমন ভাবে শুরু করতে হবে৷ 5, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সমূহ রমজানের পরে নিতে হবে৷
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় পাঠ্য বই গুলো একই ধরনের অর্থাৎ এক মানের। কিন্তু শিক্ষার্থী তো আর এক মানের নয়। শিক্ষা ব্যবস্থায় শিক্ষার্থীদের ক্যাটাগরির কথা বিবেচনায় রেখে বই ছাপালে এবং পাঠদানের ব্যবস্থা করলে শিক্ষার্থীরাও উপকৃত হবে আর ক্যাটাগরি ভিত্তিক শিক্ষার্থীরা তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ পাবে। ফলে দেশ অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবে
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
সংসদ টিভির মাধ্যমে যে ক্লাসগুলো দেওয়া হচ্ছে তা হয়তো শিক্ষার্থীদের শিক্ষার ক্ষেত্রে কিছুটা হলেও ক্ষতি পোষবে। কিন্তু প্রশ্ন হল দেশের সিংহভাগ অভিভাবক সচেতন নয়। কেননা তৃণমূল পর্যায়ে যদি জরিপ করা হয় তাহলে 90 ভাগ শিক্ষার্থীরা এসব টিভির ক্লাসের ধারে কাছেও নেই। দৃষ্টান্ত হিসেবে বলা যেতে পারে এমন লক ডাউন পরিস্থিতিতে গ্রামে গঞ্জে অনেক শিক্ষার্থীরা টিভিতে পাঠদানকালে লেখাপড়া না করে এলোপাতাড়ি ভাবে এদিক ওদিক ঘুরে বেড়ায়। তাই ফলাফলের ক্ষেত্রে সমন্বয়ের জন্য শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিক মূল্যায়নের ব্যবস্থা করলে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে।
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
প্রাথমিক ও মাধ্যমিক ক্যাটাগরির শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষার্থীদের সাবজেক্ট ভিত্তিক শিক্ষকরা তাদেরকে ধারাবাহিক মূল্যায়নের মাধ্যমে পরবর্তী ক্লাসে প্রমোশনের ব্যবস্থা করলে হয়তো ভালো হবে।
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
সেপ্টেম্বরের পরে যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালু হয় তাহলে জেএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে সময় থাকে আর মাত্র এক মাস। তাই ওই এক মাসে কিভাবে সিলেবাস কমপ্লিট করা সম্ভব?
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
কিছুদিন আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল যে ভারতে অটোপ্রমোশনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তাই আমাদের দেশেও এই ধরনের ব্যবস্থা ছাড়া হয়তো আর কোনো উপায় থাকবে না।
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
যন্ত্রের সামনে কোন শিক্ষার্থী দাঁড়াবে ওই শিক্ষার্থীর নিকট কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে কতটুকু তার জ্ঞান ধারণা রয়েছে তার উপর ভিত্তি করে তাকে নাম্বারইন করবেন। এ ধরনের পদ্ধতি অবলম্বন করলে সরকার অনেক ব্যয় থেকে বেঁচে যাবেন।
মো: হারুনুর রশিদ, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
করোনার প্রাদুর্ভাবে চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত হয়েছে। এমনকি নতুন সময়সূচিও প্রকাশ করা যাচ্ছে না।এমনি অবস্থা চলতে থাকলে শিক্ষাব্যবস্থা চরম সংকটের মধ্যে পরবে।গার্মেন্টস এর মতো এত জনসমাগম প্রতিষ্ঠান যদি চালু করা যায় তাহলে শিক্ষা কার্যক্রম কেন চালু করা যাবে না? স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ এবং এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে।ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা যায়। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অধিক সংক্ষক পরীক্ষা কেন্দ্র নির্বাচন করে অল্প সংক্ষক ছাত্র/ছাত্রী নিয়ে, এবং নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষার ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। পরীক্ষার্থী থাকবে সর্বোচ্চ ২০০/৩০০জন। দুরত্ব বজায় রেখে সিট প্লান করতে হবে। আর অভিভাবকদের পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে হবে।তাহলে শিক্ষাক্রম চালু রাখা সম্ভব হবে। মো: হারুনুর রশিদ, প্রভাষক
rezaemostafa, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
এমন কোন যন্ত্র ব্যবস্থা করলে যে পদ্ধতি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়া সহজ হয়। সে পদ্ধতি অবলম্বন করার জন্য অনুরোধ রইল।