জাল সনদে চাকরি : ধরা পড়লেন সরকারিকৃত কলেজের আরও দুই শিক্ষক! - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা


জাল সনদে চাকরি : ধরা পড়লেন সরকারিকৃত কলেজের আরও দুই শিক্ষক!

নওগাঁ প্রতিনিধি |

নওগাঁর নিয়ামতপুর সরকারি কলেজের প্রভাষক মো. এরশাদ আলী ও সরোজ কুমার দাস জাল সনদে চাকরি করছেন। জাল সনদে প্রতিষ্ঠানটির বেসরকারি আমলে চাকরি নিলেও সম্প্রতি কলেজটি সরকারি হলে জাল সনদের বিষয়টি ফাঁস হয়েছে। সম্প্রতি প্রভাষক মো. এরশাদ আলী ও সরোজ কুমার দাসের সনদটি জাল বলে যাচাই প্রতিবেদন দিয়েছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। একই সাথে জাল সনদধারী এ দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করতে বলা হয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষকে।

জানা গেছে, জাল সনদধারী দুই শিক্ষক ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দে কলেজটিতে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করে এমপিওভুক্ত হয়েছেন। তারা নিয়মিত এমপিওভোগ করতেন। ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের আগস্টে ২৭১টি কলেজের সাথে এ নিয়ামতপুর কলেজটি সরকারি হয়। এরপর আত্তীকরণের প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে এই দুইজন প্রভাষকের সনদটি যাচাইয়ের জন্য এনটিআরসিএতে পাঠানো হয়েছে। গত ১৭ সেপ্টেম্বর তাদের সনদ যাচাই করে প্রতিবেদন দিয়েছে এনটিআরসিএ।   

এনটিআরসিএ সহকারী পরিচালক ফিরোজ আহম্মেদের দেয়া প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যে সনদটি ব্যবহার করে প্রভাষক মো: এরশাদ আলী যে সনদটি দাখিল করে চাকরি নিয়েছেন তার প্রকৃত মালিক মো. আবদুল খালেক। তার সনদটি জাল করে ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দে নিয়োগ পেয়েছেন তিনি। অপর দিকে প্রভাষক সরোজ কুমার দাস  যে সনদটি দিয়ে চাকরি নিয়েছেন তা আবদুস সাত্তার নামের অপর এক প্রার্থীর। পলিটিক্যাল সায়েন্সের প্রভাষক হলেও সরোজ কুমার বাংলা বিষয়ে সহকারী শিক্ষকের জন্য দেয়া একটি সনদ দিয়েই কলেজে নিয়োগ পেয়েছিলেন। দুই শিক্ষকই নিয়মিত এমপিওভোগ করতেন। এনটিআরসিএর দেয়া সনদ যাচাই প্রতিবেদনে, জাল ও ভুয়া সনদধারী শিক্ষকদের বিরুদ্ধে নিয়ামতপুর থানায় মামলা রুজু করতে নিয়ামতপুর সরকারি  কলেজের উপাধ্যক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 

আরও পড়ুন : জাল নিবন্ধন সনদে শিক্ষকতা, সরকারিকরণের পর ধরা

এ বিষয়ে কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল মো. মমতাজ হোসেন দৈনিক শিক্ষাকে জানান, আমরা এখনো বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন কর্তৃপক্ষর চিঠি হাতে পাইনি। চিঠি পেলে নির্দেশমতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জাল সনদ দিয়ে  কিভাবে এই দুইজন প্রভাষককে নিয়োগ দিলেন? দৈনিক শিক্ষার পক্ষ থেকে এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ওই জাল সনদধারী দুইজন ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের ২০ এপ্রিল নিয়োগ নিয়েছেন আর আমি দায়িত্ব পেয়েছি ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ জানুয়ারি। তাদের নিয়োগের সময় যে প্রিন্সিপাল দায়িত্বে ছিলেন তিনি মারা গিয়েছেন। তাই এ নিয়োগের ব্যাপারে কিছু বলতে পারছিনা।

এ নিয়োগ ও জালসনদ পাওয়ার ব্যপারে জানতে চাইলে প্রভাষক সরোজ কুমার দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, আমি অসুস্থ। অপারেশন হয়েছে। এখন কথা বলতে পারছি না। 

অপরদিকে জাসনদধারী শিক্ষক মো. এরশাদ আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রশ্ন এড়িয়ে যাওয়ার বৃথা চেষ্টা করেন। কোন সদুত্তর দিতে পারেননি জাল সনদে চাকরি নেয়া এ প্রভাষক। 

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।


পাঠকের মন্তব্য দেখুন
৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়িয়ে আদেশ জারি - dainik shiksha ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়িয়ে আদেশ জারি শিশুদের স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির আহ্বান গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha শিশুদের স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির আহ্বান গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর কারিগরি শিক্ষায় ভাত-কাপড়ের অভাব হয় না : প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha কারিগরি শিক্ষায় ভাত-কাপড়ের অভাব হয় না : প্রতিমন্ত্রী ‘চলতি বছরে আরো ৫ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে আইসিটি খাতে’ - dainik shiksha ‘চলতি বছরে আরো ৫ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে আইসিটি খাতে’ ওয়েটিং লিস্ট থেকে সরকারি স্কুলে ভর্তি শুরু ২১ জানুয়ারি - dainik shiksha ওয়েটিং লিস্ট থেকে সরকারি স্কুলে ভর্তি শুরু ২১ জানুয়ারি ‘আরবি পারদর্শী প্রার্থী ছাড়া মাদরাসার লাইব্রেরিয়ান নিয়োগ হতে পারে না' - dainik shiksha ‘আরবি পারদর্শী প্রার্থী ছাড়া মাদরাসার লাইব্রেরিয়ান নিয়োগ হতে পারে না' ২০ জানুয়ারির মধ্যে সরকারি স্কুলে লটারিতে চান্স পাওয়া শিক্ষার্থীদের ভর্তি - dainik shiksha ২০ জানুয়ারির মধ্যে সরকারি স্কুলে লটারিতে চান্স পাওয়া শিক্ষার্থীদের ভর্তি please click here to view dainikshiksha website