তিস্তার ভাঙনে ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি বিলীন - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা


তিস্তার ভাঙনে ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি বিলীন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি |

গত দুইদিনে তিস্তা নদীর তীব্র ভাঙনে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার বজরা ও সুন্দরগঞ্জের সীমান্তবর্তী কাশিম বাজার লকিয়ার পাড় এলাকার ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। সোমবার (৩১ মে) বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে নদীভাঙনের এ চিত্র দেখা যায়। 

ছবি : কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

এসব এলাকার জনগণ বাড়িঘর হারানোর আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন। কেউ ঘরবাড়ি সরিয়ে নিচ্ছিন, কেউ নদ থেকে দূরে নতুন করে একচালা ঘর তুলছেন। আসবাবপত্র সরিয়ে নিচ্ছেন অনেকে। গৃহহীনরা বিপাকে পড়েছেন গবাদিপশু নিয়ে।

ছবি : কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

বৃষ্টির পানি এবং উজান থেকে নেমে আসা ঢলে তিস্তা নদী সংলগ্ন চরের জমির উঠতি ফসলসহ বসতবাড়ি বিলীন হচ্ছে। টানা ভাঙনে দিশেহারা তিস্তাপাড়ের মানুষ। গত দুই দিনে যেভাবে ঘরবাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে, তাতে কাশিম বাজার হাট, নাজিমাবাদ স্কুল, কাশিম বাজার বালিকা বিদ্যালয়সহ ১ হাজার বাড়িঘর ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ভাঙন কবলিত পরিবারগুলো মানবেতর জীবনযাপন করছে। একদিকে করোনাভাইরাস অন্যদিকে তিস্তার অব্যাহত ভাঙনের মুখে এখন বেসামাল তিস্তাপাড়ের মানুষ।

ছবি : কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

ভাঙনের শিকার আমিনুল ইসলাম (৫০),ফুলবাবু মিয়া (৪০) মোছা.আকলিমা ( ৫০) দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘নদী হামারগুলের সবকিচু কাড়ি নিচে বাহে। এ্যাকনা ঘর আচিলো, তাও কালকে নদীত চলি গেচে। হামারগুলের জমাজমি, বাড়িভিটা সগি আচিলো। নদী ভাঙি এহন কিচুই নাই। নদী ভাঙনরোধে স্থায়ী সমাধানের দাবি জানান তারা।

ছবি : কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। তাই, তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।


পাঠকের মন্তব্য দেখুন
এমপিওভুক্তি নিয়ে সংসদে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha এমপিওভুক্তি নিয়ে সংসদে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী ৬ষ্ঠ-৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সপ্তম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ - dainik shiksha ৬ষ্ঠ-৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সপ্তম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ দূরশিক্ষণে টিভি চ্যানেল চালুর চিন্তা - dainik shiksha দূরশিক্ষণে টিভি চ্যানেল চালুর চিন্তা শতভাগ উৎসব ভাতা-বাড়িভাড়াসহ শিক্ষকদের ছয় দাবি - dainik shiksha শতভাগ উৎসব ভাতা-বাড়িভাড়াসহ শিক্ষকদের ছয় দাবি করোনার মধ্যেই পাকিস্তানে মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা - dainik shiksha করোনার মধ্যেই পাকিস্তানে মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে শিক্ষক নিয়োগ : আরও ৭টি আপিল করেছে এনটিআরসিএ - dainik shiksha শিক্ষক নিয়োগ : আরও ৭টি আপিল করেছে এনটিআরসিএ হল-ক্যাম্পাস খোলা ও শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া নিয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha হল-ক্যাম্পাস খোলা ও শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া নিয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ১ম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ - dainik shiksha এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ১ম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ please click here to view dainikshiksha website