মানুষের জীবন বাঁচানোর দায়িত্ব সবার আগে : হাইকোর্ট - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা


মানুষের জীবন বাঁচানোর দায়িত্ব সবার আগে : হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক |

করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতিতে সংক্রমণ পরিস্থিতিতে শিল্প-কারখানায় অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করার নির্দেশনা চেয়ে একটি রিটের অনুমতির শুনানির সময় আদালত বলেছেন, মানুষের জীবন বাঁচানোর দায়িত্ব সবার আগে। অক্সিজেন নিয়ে পর্যবেক্ষণ করব।

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

এদিন আদালতে অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান করোনায় অক্সিজেন সংকটের বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, সীমিত সময়ের জন্য দেশের শিল্প-কারখানায় অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে শুধু হাসপাতাল ও মেডিকেলগুলোতে রোগীদের জন্য অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশনায় রিট করতে অনুমতি চাই।

তিনি আরও বলেন, ভারতে করোনাকালে শিল্প-কারখানায় অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ করে শুধুমাত্র হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টারে সাপ্লাই দিচ্ছে। একইসঙ্গে অক্সিজেন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ও হাসপাতালগুলোতে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদনও জানান।

এ সময় জবাবে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন আদালতকে জানান, সরকার হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমানে অক্সিজেন সরবরাহের সর্বাত্মক চেষ্টা করছে। দেশে অক্সিজেনের সংকট নেই। কারখানাগুলোতে পর্যাপ্ত গ্যাসের সাপ্লাই রয়েছে।

তখন আদালত আইনজীবী ইসরাত হাসানের উদ্দেশ্যে বলেন, সরকার যেহেতু অক্সিজেন সরবরাহের সর্বাত্মক চেষ্টা করছে ও অক্সিজেনের সংকট নেই বলে জানালো তাই আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করব। মানুষের জীবন বাঁচানোর দায়িত্ব সবার আগে। প্রয়োজন হলে আদালত অবশ্যই বিষয়টি দেখবে।

এ বিষয়ে ইসরাত হাসান দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘আমি জনস্বার্থে অক্সিজেনের সংকট দূর করার নির্দেশনা চেয়ে আদালতে রিটের অনুমতি নিতে মৌখিক আবেদন জানাই। কোনো রিট ফাইল করার আগে কোর্টের অনুমতি নিতে হয়। এজন্য অনুমতি নিতে কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলাম। কোর্ট আমার বক্তব্য শুনলেন। রাষ্ট্রের পক্ষের বক্তব্য শুনলেন। রাষ্ট্রপক্ষ যখন বলল ‘সরকার হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন সরবরাহ করতে সর্বাত্ত্বক চেষ্টা করছে। অক্সিজেনের কোনো সংকট নেই।’ তখন আদালত বললেন বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করব। প্রয়োজন হলে পরবর্তীতে এ বিষয়ে রিট করবেন।


পাঠকের মন্তব্য দেখুন
কঠোর বিধিনিষেধ বাড়তে পারে আরও এক সপ্তাহ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha কঠোর বিধিনিষেধ বাড়তে পারে আরও এক সপ্তাহ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলেন কিন্ডারগার্টেনের ১০০ শিক্ষক - dainik shiksha প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলেন কিন্ডারগার্টেনের ১০০ শিক্ষক বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ও স্টাডি সেন্টার বিদ্যমান আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক - dainik shiksha বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ও স্টাডি সেন্টার বিদ্যমান আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক দুই ধরনের দুই ডোজ টিকা নিলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে - dainik shiksha দুই ধরনের দুই ডোজ টিকা নিলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে করোনার প্রভাবে শিক্ষক এখন কচু ব্যবসায়ী - dainik shiksha করোনার প্রভাবে শিক্ষক এখন কচু ব্যবসায়ী মিতু হত্যা : সাবেক এসপি বাবুল আক্তারকে প্রধান আসামি করে মামলা - dainik shiksha মিতু হত্যা : সাবেক এসপি বাবুল আক্তারকে প্রধান আসামি করে মামলা ঘরে বসেই নতুন শিক্ষকদের ১০ দিনের অনলাইন প্রশিক্ষণ - dainik shiksha ঘরে বসেই নতুন শিক্ষকদের ১০ দিনের অনলাইন প্রশিক্ষণ এমপিও কমিটির ভার্চুয়াল সভা ১৭ মে - dainik shiksha এমপিও কমিটির ভার্চুয়াল সভা ১৭ মে শিক্ষক পাবেন পাঁচ হাজার, কর্মচারী আড়াই হাজার টাকা করে - dainik shiksha শিক্ষক পাবেন পাঁচ হাজার, কর্মচারী আড়াই হাজার টাকা করে সেহরি ও ইফতারের সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সূচি দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে ‘কওমি মাদরাসায় জাতীয় চেতনা ও সংস্কৃতিবোধ উপেক্ষিত’ - dainik shiksha ‘কওমি মাদরাসায় জাতীয় চেতনা ও সংস্কৃতিবোধ উপেক্ষিত’ please click here to view dainikshiksha website