শিক্ষক নিয়োগ : সুপারিশপ্রাপ্তদের যোগদান করতে দেয়নি ৩০৮ প্রতিষ্ঠান (ভিডিও) - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা


শিক্ষক নিয়োগ : সুপারিশপ্রাপ্তদের যোগদান করতে দেয়নি ৩০৮ প্রতিষ্ঠান (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক |

দ্বিতীয় চক্রের শিক্ষক নিয়োগে বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সুপারিশ পেয়েও যোগদান করতে পারেননি অনেক প্রার্থী। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শূন্যপদ না থাকলেও ভুল করে চাহিদা দেয়ার অজুহাতে অনেকে সুপারিশ পাওয়া প্রার্থীদের যোগদান করতে দেয়নি। প্রার্থীদের যোগদানে বাধা দেয়া এমন ৩০৮ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রস্তুত করেছে এনটিআরসিএ। এগুলোর মধ্যে ২১৫টি স্কুল-কলেজ ও ৯৩টি মাদরাসা রয়েছে। ফলে ৩ শতাধিক প্রার্থীর শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন নষ্ট হয়েছে। এদের মধ্যে আড়াইশর বেশি প্রার্থী এমপিওভুক্ত পদে সুপারিশ পেয়েও নিয়োগ বঞ্চিত হয়েছে। 

এসব প্রতিষ্ঠানসহ মোট ৯০৭টি প্রতিষ্ঠানের তালিকা তৈরি করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। দায়ী এ প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আর এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। বিস্তারিত ভিডিওতে। 

এনটিআরসিএ সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুসারে ৩০৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রার্থীদের যোগদান করতে দেয়নি। এদের মধ্যে ২১৫টি স্কুল-কলেজ ও ৯৩টি মাদরাসা। ৩০৮ জন প্রার্থীর মধ্যে ২৫৭ জনই এমপিও পদে সুপারিশ পেয়েছিলেন। তাদের মধ্যে ১৭৪জন বিভিন্ন স্কুল-কলেজে এবং ৮৩ জন প্রার্থী মাদরাসায় এমপিও পদে সুপারিশ পেয়েছিলেন। কিন্তু তাদের যোগদান করতে দেয়া হয়নি। আর ৫১জন প্রার্থী ননএমপিও পদে নিয়োগ সুপারিশ পেয়েও যোগদান করতে পারেননি।

জানা গেছে, আগে ও বর্তমানে এনটিআরসিএ ও অধিদপ্তরগুলোতে আসা অভিযোগের প্রেক্ষিতে এ তালিকা করা হয়েছে। দ্বিতীয় নিয়োগ চক্রে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়ে যোগদান ও এমপিও বঞ্চিত এসব প্রার্থীদের আবেদন চেয়েছে এনটিআরসিএ। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রার্থীরা আবেদনের সুযোগ পাচ্ছেন। তবে, আগে আবেদন করা বা ননএমপিও পদে সুপারিশপ্রাপ্তদের আবেদন করার প্রয়োজন নেই। 

গত ৯ জুন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সভাপতিত্বে এনটিআরসিএর বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শূন্যপদ না থাকা সত্ত্বেও ভুল চাহিদা দেয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রতিষ্ঠানগুলোর তালিকা প্রস্তুত করতে বলা হয় শিক্ষা অধিদপ্তর ও এনটিআরসিএকে। 

এতে আরও সিদ্ধান্ত হয়, সুপারিশকৃত প্রার্থীদের যোগদানে ব্যর্থতা ও অপারগতার কারণ জানতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিঠি পাঠানো হবে। প্রকৃত নিয়োগ বঞ্চিতদের পূর্ণাঙ্গ তথ্য প্রস্তুত করে প্রকৃত চিত্র শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে জানাতে হবে। আর বেসকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শূন্য পদ না থাকা, কাঠামো বহির্ভূত চাহিদা, ভুল তথ্য প্রেরণের কারণে সুপারিশ পেয়েও নিয়োগ বঞ্চিতদের তালিকা প্রস্তুত করে মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে হবে। যাদের বয়স ৩৫ বছর অতিক্রম করেনি তাদের এসএমএস করে তারা সুপারিশপ্রাপ্ত পদে চাকরি করতে আগ্রহী কিনা জানতে হবে এবং তারপর আগ্রহী প্রার্থীদের ভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শূন্য পদের বিপরীতে পদায়নের জন্য এনটিআরসিএ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। 

এ সিদ্ধান্তের পর আশায় বুক বাঁধছেন যোগদান বঞ্চিত প্রার্থীরা যারা এমপিওভুক্ত পদে সুপারিশ পেয়েও যোগদান করতে পারেননি তাদের অন্য এমপিও পদে দ্রুত নতুন সুপারিশ করতে সংশ্লিষ্টদের কাছে আবেদন জানিয়েছেন তারা।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।




পাঠকের মন্তব্য দেখুন
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের আবেদনে ভুল সংশোধনের সুযোগ - dainik shiksha প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের আবেদনে ভুল সংশোধনের সুযোগ আসছে বছর থেকেই পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে প্রোগ্রামিং - dainik shiksha আসছে বছর থেকেই পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে প্রোগ্রামিং ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন - dainik shiksha ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন ইবতেদায়ি ও দাখিল শিক্ষার্থীদের পঞ্চম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ - dainik shiksha ইবতেদায়ি ও দাখিল শিক্ষার্থীদের পঞ্চম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনও ইএফটিতে - dainik shiksha প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনও ইএফটিতে ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার দায়িত্ব মাদরাসা বোর্ডের - dainik shiksha ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার দায়িত্ব মাদরাসা বোর্ডের প্রতি স্কুলের তিন শিক্ষককে করতে হবে কৈশোরকালীন পুষ্টি প্রশিক্ষণ - dainik shiksha প্রতি স্কুলের তিন শিক্ষককে করতে হবে কৈশোরকালীন পুষ্টি প্রশিক্ষণ please click here to view dainikshiksha website