শিক্ষক পদায়নে অনিয়মের অভিযোগ - বদলি - দৈনিকশিক্ষা


শিক্ষক পদায়নে অনিয়মের অভিযোগ

নীলফামারী প্রতিনিধি |

নীলফামারীতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক পদায়নে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নীতিমালা লঙ্ঘন করে শহরের কালীদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক সহকারী শিক্ষিকাকে পদায়ন দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এনামুল হকের বিরুদ্ধে।

সরকারি নীতিমালায় আছে, পৌর এলাকার কোনো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকের পদ খালি হলে পদ পূরণে পৌর এলাকার স্থায়ী ঠিকানার শিক্ষকরা জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে অগ্রাধিকার পাবেন। পদ খালি হওয়ার সাত কার্যদিবস পর্যন্ত আবেদনের সুযোগ পাবেন বদলি-ইচ্ছুক শিক্ষকরা। এরপর আবেদনকারী শিক্ষকদের তালিকা টানাতে হবে সংশ্লিষ্ট উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ের নোটিশ বোর্ডে। তবে নীলফামারী পৌর এলাকার কালীদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন সহকারী শিক্ষকের শূন্যপদ পূরণে নীতিমালার কোনো শর্তই মানা হয়নি। নীতিমালার তোয়াক্কা না করে পদ শূন্যের দিনই আরেকজনকে পদায়ন দেওয়া হয়। পদায়ন পাওয়া শিক্ষকের নাম আমিনা খাতুন। তিনি জেলা সদরের কচুকাটা ইউনিয়নের দুই নম্বর কচুকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন। তাঁর স্থায়ী ঠিকানা উপজেলার ইটাখোলা ইউনিয়নের মাস্টারপাড়া গ্রামে। তাঁর স্বামী আব্দুস সাত্তার সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তরের সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা।

কালীদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন পেতে ইচ্ছুক এক শিক্ষকের অভিযোগ, ‘নীতিমালা লঙ্ঘন করে ওই পদায়নের আদেশ দেওয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে বিদ্যালয় বন্ধের সময় পদ খালি করে বিশেষ সুবিধা নিয়ে একই দিন আরেকজনকে পদায়নের আদেশ দেওয়া হয়েছে।’ অন্য এক শিক্ষক বলেন, ‘নীতিমালা সবার জন্য সমান। বিশেষ ক্ষমতা বলে কেউ সুযোগ বেশি নিবেন—এটা মানা সম্ভব নয়। অবৈধ ওই আদেশ বাতিল করে নীতিমালার ভিত্তিতে পদটি পূরণের দাবি জানাচ্ছি।’

জেলা ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তর সূত্র মতে, জেলা শহরের কালীদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা রোশেনা হামিদ তাঁর স্বামীর কর্মস্থল কিশোরগঞ্জ উপজেলায় বদলির জন্য আবেদন করেন। তাঁর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৪ মার্চ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বরাবরে পদ খালি সাপেক্ষে বদলির প্রস্তাব পাঠান। কিশোরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা একই তারিখে খিলালগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়নের জন্য পত্র পাঠান নীলফামারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে। পরদিন ২৫ মার্চ রোশেনা হামিদকে প্রস্তাবিত বিদ্যালয়ে বদলির আদেশ জারি করা হয়। একই সঙ্গে কালীদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শূন্যপদে আমিনা খাতুনকে পদায়নের অনুমতি দেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নবেজ উদ্দিন সরকার।

এ বিষয়ে কালীদাস সরকারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নার্গিস আঞ্জুমান আরা বলেন, ‘করোনা দুর্যোগের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে বিদ্যালয় বন্ধ আছে। বদলি ও শূন্যপদে কে এসেছে—বিষয়টি আমি এখনো অফিসিয়ালি জানি না।’

সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এনামুল হক বলেন, ‘ওই বিদ্যালয়ের পদটি খালি হবে সেটি অনেক আগে থেকে শিক্ষকরা জানলেও অন্য কেউ আবেদন করেননি। আমিনা খাতুন একমাত্র আবেদনকারী হওয়ায় তাঁকে পদায়ন দেওয়া হয়েছে। এখানে নীতিমালার কোনো লঙ্ঘন হয়নি। এ ব্যাপারে শিক্ষকদের কোনো অভিযোগ থাকলে আমাকে অথবা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানাতে পারেন।’

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নবেজ উদ্দিন সরকার বলেন, ‘নীতিমালা অনুযায়ী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমার কাছে প্রস্তাবনা পাঠালে আমি সেটা অনুমোদন করি। সেখানে কোনো অনিয়ম বা নীতিমালা লঙ্ঘন হলে দায়ী থাকবেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকরা আমার কাছে অভিযোগ করলে অবশ্যই দেখব।’

 


পাঠকের মন্তব্য দেখুন
যত টাকা লাগুক সবাইকে ভ্যাকসিন দেবো : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha যত টাকা লাগুক সবাইকে ভ্যাকসিন দেবো : প্রধানমন্ত্রী এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা ৩ বিষয়ে - dainik shiksha এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা ৩ বিষয়ে সরকারি চাকরিজীবীরা সম্পদের হিসাব না দিলে বিভাগীয় মামলা - dainik shiksha সরকারি চাকরিজীবীরা সম্পদের হিসাব না দিলে বিভাগীয় মামলা সাতমাস ভাতা পাচ্ছেন না মাউশির সাবেক মহাপরিচালকসহ অর্ধশত বীর মুক্তিযোদ্ধা - dainik shiksha সাতমাস ভাতা পাচ্ছেন না মাউশির সাবেক মহাপরিচালকসহ অর্ধশত বীর মুক্তিযোদ্ধা এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ - dainik shiksha এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ চাটুকারিতার মহোৎসবে বিলম্বিত প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়ন - dainik shiksha চাটুকারিতার মহোৎসবে বিলম্বিত প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়ন দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনে ৩০ শতাংশ ছাড় - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনে ৩০ শতাংশ ছাড় শহীদ মিনার থাকা বিদ্যালয়ের তালিকা চেয়েছে সরকার - dainik shiksha শহীদ মিনার থাকা বিদ্যালয়ের তালিকা চেয়েছে সরকার ..পিস্তল রেখে ঘুমাতাম, ..বাচ্চাকে দেশছাড়া করমু: ভিকারুননিসা অধ্যক্ষ বচনে হইচই - dainik shiksha ..পিস্তল রেখে ঘুমাতাম, ..বাচ্চাকে দেশছাড়া করমু: ভিকারুননিসা অধ্যক্ষ বচনে হইচই please click here to view dainikshiksha website