মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

Ripon kumer, ০৭ মে, ২০২১
সব স্তরের শিক্ষকদের প্রন দনা দিতে হবে
Tabiatkowser, ০৬ মে, ২০২১
প্রশ্ন হল এসব কিন্ডারগার্টেন ও নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পিছনে কি লক্ষ্য উদ্দেশ্য রয়েছে বা কোন উপকার হয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখতে হবে। এটি সকলেই জানে যে, এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যক্তি মালিকানায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যা মূলত তাদের বড় অঙ্কের ব্যবসার জন্য তৈরি করা হয়। ভাবতে অবাক লাগে যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের থেকে গলাকাটা ফি আদায় করে ঠিক কিন্তু এইসব প্রতিষ্ঠানের মালিকেরা শিক্ষকদের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করলেও মূলত মালিকেরা প্রতিষ্ঠানের আয়ের শিক্ষকদেরকে দেয় ১০% আর মালিকেরা নিয়ে যায় ৯০%। এখন প্রশ্ন জাগে সরকার কেন এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদেরকে প্রণোদনা দেবে? এসব প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠা মূলত কোন সরকারের উদ্দেশ্যে ভিত্তিতে তৈরি হয়নি। করোনার এমন সংকটে এসব প্রতিষ্ঠানের মালিকেরা প্রতিষ্ঠানের পূর্ব আয় হতে শিক্ষকদেরকে বেতন প্রণোদনা দেবেন। নতুবা দেশের যত সব কিন্ডারগার্টেন ও নন এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মালিকদের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত সকল শিক্ষকরা বেতন প্রণোদনার জন্য আদালতে কঠোরভাবে রিট করবেন এই প্রত্যাশা করি।
Tabiatkowser, ০৬ মে, ২০২১
দেশে প্রায় ৬০ হাজার কিন্ডারগার্ডেন স্কুলে প্রায় ৮ লাখ থেকে ১০ লাখ শিক্ষক বড় আর্থিক কষ্টে আছেন। আর মহামারীর কারণে ৩৭ হাজারেরও বেশি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বেতন অনিয়মিত হয়ে পড়ার কারণে চরম বিপাকে আছে। এসব প্রতিষ্ঠানের দুই লাখেরও বেশি নন-এমপিও শিক্ষক সংকটে আছেন। যা বড়ই অমানবিক ও কষ্টকর বটে। আমি মনে করি এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যারা মালিক তাদের বিরুদ্ধে এসব প্রতিষ্ঠানের নিয়োজিত শিক্ষকদের বেতন-ভাতা ও প্রণোদনার জন্য দেশের উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হওয়া দরকার। এ ছাড়া তাদের আর কোন উপায় নেই। কারণ এসব প্রতিষ্ঠানে যারা চাকরি করেছেন তারা খুব মানবিক কষ্টে আছেন আর তারাও তো মানুষ।
এ,কে,এম আশ্রাফুজ্জামান, ০৬ মে, ২০২১
আন্তরিক ধন্যবাদ, সময়োপযোগী লেখনী............. এখন অপেক্ষা শুধু কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি গোছর ও তাদের সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের.........
Md.Moinul Islam, ০৬ মে, ২০২১
বেসরকারী শিক্ষকরা কি মানুষ? এরা না সমাজের কেউ, না এই স্বাধীন সার্বভৌমের নাগরিক। এদের কারও কাছে হাত পেতে কিছু চাইতে মানা , না খেয়ে দিনের পর দিন কাটানোর পরও মুখ ফুটে কিছু বলতে মানা । শিক্ষক তকমা দিয়ে এই সমাজ এদেরকে কীটে পরিনত করছে । সরকারের পক্ষ থেকে নেই কোন সদিচ্ছা কারন জিডিপি তে এদের কোন পভাব নেই !! আফসোস !! আপনি কখনও ভাল জাতি পাবেন না ।